ঢাকা শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

এটাই কি বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ?

আইনশৃঙ্খলা

এটাই কি বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ?

সুলতানা কামাল

সুলতানা কামাল

প্রকাশ: ২৮ ডিসেম্বর ২০২৩ | ০৪:২৩

গত ২৬ ডিসেম্বর দৈনিক সমকালে ‘নির্যাতনে শুধু কাতরিয়েছি চিৎকারও করতে পারিনি’ শীর্ষক খবরটা পড়তে গিয়ে বারবার মনে এই প্রশ্ন জাগছিল যে, এটাই কি বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ? মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ?

খবরে প্রকাশ, যশোরের এক রিকশাচালক ইউনুচের বাড়িতে চারজন ব্যক্তি র‍্যাব পরিচয়ে ঢুকে তাঁর হাতে হ্যান্ডকাফ লাগিয়ে, মেয়ের হিজাব দিয়ে মুখ বেঁধে লাঠি দিয়ে নির্যাতন করতে থাকেন। ইউনুচকে হাত-পা বেঁধে ঝোলানোরও হুমকি দেন। নির্যাতনের কারণে ইউনুচ বর্তমানে যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। পত্রিকার খবর অনুযায়ী, ইউনুচের দাবি– তাঁর নামে কোনো মামলা নেই। সমকাল আরও জানাচ্ছে, যশোর জেনারেল হাসপাতালের ডাক্তার পার্থপ্রতিম চক্রবর্তী বলেন, আঘাতের কারণে ইউনুচের শরীরের বিভিন্ন স্থানে রক্ত জমে গেছে। ইউনুচের নিজের ভাষ্য অনুযায়ী, র‍্যাব সদস্যরা পায়ে আঘাত করার কারণে তাঁকে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে হাঁটতে হচ্ছে। ধর্মপ্রাণ ইউনুচ কোরআন শরিফ এবং তাঁর মায়ের মাথার ওপর হাত রেখে তাঁর কাছে অস্ত্র নেই বলা সত্ত্বেও র‍্যাব নির্যাতন বন্ধ করেনি। 

অন্যদিকে র‍্যাব-৬ যশোর ক্যাম্পের অধিনায়ক মেজর মোহাম্মদ সাকিব হোসেন দাবি করেন, ইউনুচের বাসায় অস্ত্র রাখার সুনির্দিষ্ট অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অভিযান চালানো হয়। তারা স্বীকার করেন, ইউনুচের বাসায় অস্ত্র পাওয়া যায়নি। তবে ইউনুচের শরীরে আঘাতের চিহ্ন এবং হাসপাতালে ভর্তি হওয়া প্রসঙ্গে তিনি কিছুই বলেননি। এই অস্বীকৃতিতে আশ্চর্য হওয়ার অবশ্য কিছু নেই। এটা তাদের গৎবাঁধা আচরণ। যশোরের মানবাধিকার সংগঠনের নির্বাহী পরিচালক ইউনুচের ওপর নির্যাতনের ভয়াবহতার চিহ্ন দেখেছেন বলে মন্তব্য করেছেন এবং সংগঠনটি তাঁকে আইনি সহায়তা দেবে বলে জানিয়েছে। এটি স্বস্তির ব্যাপার।

ওপরের উপাখ্যানটি একেবারেই নতুন কিছু নয়; এ দেশে অপ্রত্যাশিতও নয়। দিনের পর দিন রাষ্ট্রীয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা সাধারণ নাগরিকদের সন্দেহের বশে অথবা প্রাপ্ত কোনো তথ্যের পরিপ্রেক্ষিতে কোনো রকম জবাবদিহির তোয়াক্কা না করে তাদের ইচ্ছামতো অপমানজনক ও নির্যাতনমূলক আচরণ করে পার পেয়ে যাচ্ছেন। কখনও কখনও তাদের এ ধরনের ‘অভিযান’ হত্যাকাণ্ড ও গুমের মতো গুরুতর ঘটনা পর্যন্ত গড়ায়। 

কয়েক দশক ধরে রাষ্ট্রীয় বাহিনীগুলোর, যার মধ্যে রয়েছে মূলত র‍্যাব ও পুলিশ, এহেন বিচারবহির্ভূত বেআইনি আচরণের প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে মানবাধিকার সংগঠনগুলো। কিন্তু সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের তাতে কোনো কিছু আসে যায় বলে মনে হয় না। বরং যারা এসব বিষয়ে তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ বা জবাবদিহি আদায়ের চেষ্টা করেছেন, তাদেরই কর্তৃপক্ষের রোষানলে পড়তে হয়েছে। মৌখিক তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য, অপমানজনক কথাবার্তা থেকে শুরু করে আরও নানা রাষ্ট্রীয় বৈরিতার শিকার হতে হয়েছে মানবাধিকার নিয়ে আন্দোলনকারীদেরই। মন্তব্য শুনতে হয়েছে, পশ্চিমা মানদণ্ড ধার করে মানবাধিকারকর্মী বা সংগঠনগুলো ‘ষড়যন্ত্রমূলকভাবে’ দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য এসব করে থাকে। 

অবাক লাগে, যখন মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের এবং আরও গুরুত্বপূর্ণভাবে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে– এমন দাবিদার সরকারের প্রতিনিধিরাও সেই একই সুরে কথা বলেন। এসব কথা বলার সময় হয়তো তারা ভুলে যান, কোনো একদিন তাদেরই প্রতিষ্ঠাতা, মুক্তিযুদ্ধের অবিসংবাদিত নেতার অভিভাবকত্বে যে সংবিধান রচিত হয়েছিল, সেই সংবিধানেরই ৩৫(৫) অনুচ্ছেদে তারা নিজেরাই বলেছেন– বিচার ও দণ্ড সংক্রান্ত কোনো পর্যায়েই ‘কোন ব্যক্তিকে যন্ত্রণা দেওয়া যাইবে না কিংবা নিষ্ঠুর, অমানুষিক বা লাঞ্ছনাকর দণ্ড দেওয়া যাইবে না কিংবা কাহারও সহিত অনুরূপ ব্যবহার করা যাইবে না।’ এই অনুচ্ছেদ তাহলে কি বঙ্গবন্ধুসহ আমাদের সম্মানিত সংবিধানপ্রণেতারা পশ্চিমা শক্তির নির্দেশে লিখেছিলেন?

ক্ষমতায় যাওয়ার আগে জনগণের সমর্থন আদায়ে কিন্তু তারা এই সংবিধানেরই দোহাই দিয়ে থাকেন। কোনোমতে নির্বাচিত হতে পারলে এই সংবিধানের ওপরেই হাত রেখে শপথ গ্রহণ করেন– সব রকম রাগ-অনুরাগের ঊর্ধ্বে উঠে শুধু জনস্বার্থে দেশ পরিচালনা করবেন। অথচ তারাই ক্ষমতায় আরোহণ করে কত সহজে নিজেদের দেওয়া কথা বেমালুম ভুলে যান! মনে করিয়ে দিতে গেলেও রুষ্ট হন। আত্মবিস্মৃতির কী নিদারুণ দৃষ্টান্ত! ক্ষমতার মদে মত্ত অহং নিজেদেরকেই নিজেদের অঙ্গীকার অস্বীকার করতে প্ররোচিত করে। না জবাবদিহি, না চক্ষুলজ্জা– কিছুই নিজেদের করা অঙ্গীকার রক্ষায় বাধ্য করতে পারে না। 

দু’দিন হয়ে গেল, একটি বহুল প্রচলিত দৈনিক পত্রিকায় এত বড় একটি উদ্বেগজনক খবর বের হলো। আমাদের বিচার বিভাগ বা মানবাধিকার কমিশন স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নিয়েছে– তেমন খবর জানতে পারলাম না। রাষ্ট্রীয় বাহিনীর সদস্যদের দ্বারা ইউনুচের মতো সাধারণ মানুষের এমন ভয়াবহ নির্যাতনের শিকার হওয়া বাংলাদেশের মানুষের জন্য এতটাই স্বাভাবিক ব্যাপার যে কারও টনক নড়ে না? এটাই কি বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ? 

কথা উঠতে পারে, এমন ঘটনা বিরল। আমাদের অভিজ্ঞতায় অবশ্যই সেটা সত্য নয়। তারপরও প্রশ্ন করতে চাই, এমন একটি ঘটনাও বিচারের আওতার বাইরে থাকবে কেন?

সুলতানা কামাল: প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, মানবাধিকার সংস্কৃতি ফাউন্ডেশন

আরও পড়ুন

×