নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে যা আন্তর্জাতিক মহল সরাসরি প্রত্যক্ষ করেছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী তাজুল ইসলাম। তিনি বলেন, ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট হওয়ার পরও বিপুল ভোটে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বিজয় অর্জন করেছে। কূটনীতিকদের কাছে এই ম্যাসেজটা গেছে যে, নারায়ণগঞ্জে সুষ্ঠু নির্বাচন হয়েছে। এই নির্বাচন ফিদ্ধ অ্যান্ড ফেয়ার হয়েছে- এটা কূটনীতিকরাও স্বীকার করেছেন। 

গতকাল সোমবার মন্ত্রণালয়ে মন্ত্রীর সাথে সাথে সাক্ষাৎ করেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী। সাক্ষাৎ শেষে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। 

ইভিএমে কারচুপির বিষয়ে পরাজিত প্রার্থীর অভিযোগ প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, পরাজিত হলে প্রার্থীরা এমনটা বলেই থাকেন। ইভিএমে নির্বাচন হলে কারচুপি করার সুযোগ নেই। এ কারণেই এ পদ্ধতির গ্রহণযোগ্যতা বেশি। ভোট চলাকালীন কিছু টেকনিক্যাল সমস্যা হতেই পারে। এটা শুধু আমাদের দেশেই হচ্ছে- এমন না। সারা বিশ্বেই এই ত্রুটি দেখা দেয়। এটা কোনো অভিযোগের ভিত্তি হতে পারে না।

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সংঘাত প্রসঙ্গে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী জানান, ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করেছে। প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচন হচ্ছে। কোথাও কোথাও নিজেদের প্রার্থীকে জেতাতে গিয়ে বিবাদের ঘটনা ঘটে, এতে কিছু অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে যা আমাদের কাম্য না। এ ধরনের দুর্ঘটনা শুধু বাংলাদেশে নয়, পার্শ্ববর্তী দেশসহ সারা বিশ্বে এ দৃষ্টান্ত আছে।

ভারতীয় হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ভারত সারা দেশের উপজেলা, পৌরসভা পর্যায়ে কিচেন মার্কেটের অবকাঠামো নির্মাণে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। শাক-সবজি, মাছ-মাংসসহ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য কেনাবেচায় ভারত সরকার প্রতিবেশী বন্ধু দেশ হিসেবে আমাদের উন্নয়ন কাজে অংশ নিতে চায়। এই মার্কেট তৈরি ব্যয়বহুল না হলেও তারা বন্ধুত্বের নিদর্শন স্বরূপ এই অবদান রাখতে চায়।