দেশের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও লেখক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেছেন,  আমি অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে বলছি, এই ছেলেমেয়েদের আন্দোলনকে থামানোর জন্য যে প্রক্রিয়াগুলো নেওয়া হয়েছে, সেটা অমানবিক, নিষ্ঠুর, দানবীয়। আমি ধরেই নিয়েছিলাম, এখানে একটা মেডিকেল হেলথ থাকবে। তারা কন্টিনিউয়াসলি এই ছেলেমেয়েদের দেখবে।

তিনি বলেন, আমি খুবই ব্যথা পেয়েছি মনে, যখন দেখেছি এখানে কোনো রকম মেডিকেল হেলথ সুবিধা নাই। ছেলেমেয়েরা যখন চেষ্টা করেছে মেডিকেল হেলথ আনার জন্য, তারা সেটা আনতে পারে নাই।

বুধবার সকালে সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগের দাবিতে করা অনশনকারীদের অনশন ভাঙিয়ে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় তিনি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে বাধাগ্রস্ত করতে এসব অপচেষ্টার নিন্দা জানিয়েছেন। এর আগে সকাল সোয়া ১০টার দিকে শিক্ষার্থীদের পানি পান করিয়ে অনশন ভাঙান তিনি। 

এরপর বেলা সোয়া ১১টার দিকে তিনি সংবাদমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন। এর আগে বুধবার ভোর ৪টার দিকে স্ত্রী অধ্যাপক ড. ইয়াসমিন হককে নিয়ে ক্যাম্পাসে পৌঁছান তিনি। সেখানে গিয়ে তিনি অনশনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। 

শিক্ষার্থীরা তাদের কথা শুনে অনশন ভাঙায় সন্তুষ্টি প্রকাশ করে শাবিপ্রবির সাবেক এই অধ্যাপক বলেন, ‘আমি ও প্রফেসর ইয়াসমিন হক গত রাতে ঢাকা থেকে রওনা দিয়ে ভোর রাতে এখানে পৌঁছাই। আমরা আমাদের ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে কথা বলি। আমরা তাদের অনুরোধ করি, তোমাদের প্রাণ অনেক মূল্যবান। এই প্রাণ এই রকম একজন মানুষের জন্য তোমরা বিপদগ্রস্ত করবে না। তারা আমাদের অনুরোধ রক্ষা করে আজকে সকালবেলা সবাই মিলে অনশন ভঙ্গ করেছে। আমি আমার জীবনে এর থেকে বেশি আনন্দ কখনো পাই নাই। আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। এখন তাদের হাসপাতালে নিতে হবে, তারা যেন সুস্থ হয়ে উঠে ঠিকভাবে, সেটা নিশ্চিত করতে হবে।