করোনাকালীন প্রণোদনা টাকা না পাওয়ায় ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালককে অবরুদ্ধ করে রাখে নার্স-ওয়ার্ড বয় ও কর্মচারীরা।

বুধবার বেলা ১১টার দিকে পরিচালকের কক্ষে অবস্থান নেয় প্রতিষ্ঠানটির নার্স, ওয়ার্ড বয়সহ চতুর্থ শ্রেনীর কর্মচারিরা। এসময় ৫০০ শয্যার ওই হাসপাতালটিতে রোগী সেবা বন্ধ থাকে।

পরবর্তীতে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) সভাপতির মধ্যস্থতায় করোনার প্রনোদনার অর্থ আগামী ১০ দিনের মধ্যে প্রদানের আশ্বাসে কর্মসূচি প্রত্যাহার করে কাজে ফিরে যান বিক্ষোভকারীরা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নার্স ও ওয়ার্ড বয় অ্যাসোসিয়েশনের যুগ্ম মহাসচিব আফসানা আক্তার শান্তা জানান, যারা করোনার সময়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রোগীদের সেবা দিয়েছে তাদের জন্য গত বছরের জুলাইয়ে সরকারের পক্ষ থেকে ১ কোটি ৬০ লাখ টাকা প্রতিষ্ঠানটির অনুকূলে বরাদ্দ করে। কিন্তু আমাদের পরিচালকের খাম-খেয়ালির কারণে সেই টাকার ১ কোটি টাকা ফেরত চলে যায়। আমরা এই অযোগ্য পরিচালকের অপসারণ দাবি করছি, পাশাপাশি আমাদের ন্যায্য টাকা পাওয়ার প্রত্যাশা করছি।

এ বিষয়ে হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. সাইফুর রহমান বলেন, টাকা বরাদ্দ পাওয়ার পর আমরা একটি কমিটি গঠন করি। সেই কমিটির তথ্যের ভিত্তিতে তালিকা তৈরি করে এজি অফিসে পাঠানো হলে সেখান থেকে জানানো হয় প্রয়োজনীয় অর্থ নেই। এ খবরে হাসপাতালের কিছু স্টাফরা বিক্ষোভ করেছে।

তিনি আরও জানান, প্রয়োজনীয় অর্থের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরের পত্র পাঠানো হয়েছে। আশা করছি দ্রুতই সমস্যা নিরসন হবে।

এদিকে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি ডা. আব্দুল জলিল জানান, বিক্ষোভের খবর পেয়ে আমি দ্রুত ঘটনাস্থলে যাই। বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে কথা বলে ১০ দিনের সময় নেওয়া হয়েছে। তারা এখন কাজে ফিরে গেছেন।