ব্রিটেনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ বৃহস্পতিবার ৯৬তম জন্মদিন উদযাপন করেছেন। জন্মদিনের দিনটি স্বামী প্রিন্স ফিলিপের স্মৃতিবিজড়িত পূর্ব ইংল্যান্ডের স্যান্ড্রিংহামের নরফোক প্রাসাদে কাটিয়েছেন তিনি। সেখানেই রানী তার পরিবার ও বন্ধুদের সঙ্গে একত্র হন।

রাতটি তিনি প্রাসাদেই কাটাবেন বলে আগে থেকেই ঠিক করা ছিল। এ প্রাসাদটি ছিল স্বামী ফিলিপের খুব প্রিয়। এর আগে হেলিকপ্টারে চড়ে নরফোক এস্টেটে পৌঁছান রানী। ঘোড়ার প্রতি রানীর প্রচণ্ড ভালোবাসা সর্বজন বিদিত। জন্মদিন উপলক্ষে প্রিয় দুটি ঘোড়াসহ রানীর একটি ছবি প্রকাশ করা হয়েছে। রানীর সবসময়ের বাসস্থান উইন্ডসর ক্যাসলে ছবিটি তোলা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

জন্মদিন উপলক্ষে কেমব্রিজের ডিউক এবং ডাচেস টুইটারে রানীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। শুভেচ্ছা বাণীতে রানীকে যুক্তরাজ্য, কমনওয়েলথ ও বিশ্বজুড়ে অনেকের জন্য অনুপ্রেরণা বলে অভিহিত করা হয়েছে। এ ছাড়া সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে রানী ও প্রিন্স ফিলিপের একটি ছবি সবার সঙ্গে শেয়ার করেছেন ডিউক ও ডাচেস। এদিকে বাকিংহাম প্যালেস কর্তৃপক্ষ রানীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানানোর পাশাপাশি ১৯২৮ সালে তোলা দুই বছর বয়সী রাজকুমারী এলিজাবেথের একটি ছবি টুইট করেছে। জন্মদিন উপলক্ষে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও মন্ত্রীরাও রানীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। এ ছাড়া রানীর সম্মানে জন্মদিনে তাকে গান স্যালুট দেওয়া হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের একটি টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে প্রিন্স হ্যারি বলেন, সবার জীবনেই একটা সময় আসে যখন মানুষ জন্মদিন পালন করতে বিরক্ত বোধ করে। কিন্তু রানীর এই মাইলফলককে কোনোভাবেই ছোট করে দেখার সুযোগ নেই।

১৯২৬ সালের ২১ এপ্রিল ব্রুটন স্ট্রিটের একটি বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন এলিজাবেথ। তার পুরো নাম এলিজাবেথ আলেকজান্ড্রা ম্যারি উইন্ডসর। ১৯৫২ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি মাত্র ২৫ বছর বয়সে ব্রিটেনের সিংহাসনে বসেন তিনি। রাজা ষষ্ঠ জর্জের মৃত্যুর পর এলিজাবেথ ব্রিটেনের পাশাপাশি কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ডসহ ডজনেরও বেশি ভূখণ্ডের রানী হন। সিংহাসনে বসার পর বর্তমানে ৭০ বছর পার করছেন তিনি। ব্রিটেনের সিংহাসনে অনেক রানী এসেছেন। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি সময় ধরে আছেন রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ। তার আগে কোনো ব্রিটিশ শাসকেরই টানা সাত দশক সিংহাসনে থাকার নজির নেই। এলিজাবেথ যখন সিংহাসনে আরোহণ করেন, তখন জোসেফ স্টালিন, মাও সে তুং এবং হ্যারি ট্রুম্যান সোভিয়েত ইউনিয়ন, চীন ও যুক্তরাষ্ট্র শাসন করছিলেন। সে সময় যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন উইনস্টন চার্চিল।

রানীর সিংহাসনে আরোহনের প্লাটিনামজয়ন্তী বা ৭০ বছরপূর্তিতে হাতির দাঁতের রঙের গাউন আর নীল উত্তরীয় পরা রানীর আদলে বানানো একটি বার্বি পুতুলও বাজারে ছাড়া হয়েছে।

গত বছরের অক্টোবরে অজ্ঞাত এক রোগে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে এক রাত কাটান রানী। তার পর থেকে জনসমক্ষে খুব একটা দেখা যাচ্ছে না তাকে। চিকিৎসকরা রানীকে বিশ্রামে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন। এরপর চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে তার দেহে কভিড ধরা পড়েছিল। কভিড থেকে সুস্থ হলেও বর্তমানে অনলাইনেই বিভিন্ন বৈঠক সারেন তিনি। রাজপরিবারের বেশিরভাগ বড় অনুষ্ঠানেও তাকে খুব একটা দেখা যাচ্ছে না।