বাংলাদেশের টেস্ট ক্রিকেট একে একে পেরিয়ে গেছে ২২ বছর। এই সময়ে বাংলাদেশ খেলেছে ১৩৪ টেস্ট, যেখানে জয় মোটে ১৬টি। সেন্ট লুসিয়ার চলমান এই টেস্ট হারলেই ক্রিকেটার অভিজাত এই ফরম্যাটে ফরম্যাটে শততম হার দেখে ফেলবে বাংলাদেশ। অন্তত তৃতীয়দিনের খেলা শেষে ম্যাচের পরিস্থিতি সেটাই জানান দেয়।

এমন পরিস্থিতিতে অনেকেই বাংলাদেশের টেস্ট খেলার মানসিকতা বা যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন। সম্প্রতি প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গোও বলেছেন, বাংলাদেশে এখনও টেস্ট সংস্কৃতি গড়ে ওঠেনি। তবে টাইগারদের টেস্ট যাত্রাকে এতটা খাটো করে দেখতে নারাজ বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। রোববার রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে অ্যাওয়ার্ড নাইট অনুষ্ঠান করে ক্রিকেট কমিটি অব ঢাকা মেট্টোপলিটিন (সিসিডিএম)। ওই অনুষ্ঠানে এসে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানিয়েছেন, টেস্ট সংস্কৃতি গড়ে তুলতে ধৈর্য ধরতে হবে।

ভারত ও নিউজিল্যান্ডের উদাহরণ দিয়ে তিনি আশা প্রকাশ করেছেন, সময়ের সাথে সাথে বাংলাদেশ টেস্ট দলও ঘুরে দাঁড়াবে। তিনি বলেন, 'বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন নিউজিল্যান্ড, তারা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর ৮ সিরিজে ২টা জিতেছে, টেস্ট ম্যাচ দুটা জিতে ড্র করেছে ওরা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েও তো পারছে না। তাই বলে কি খারাপ হয়ে গেছে। এত হতাশ হওয়ার কিছু নাই।'

পাপন বলেছেন, 'আমাকে যদি ২২ বছরের কথা বলেন, আমরা দেশের মাটিতে জেতা শুরু করেছি। তাই বলে সবগুলো যে জিতে যাব তা না। আমরা কয়েকটা টেস্ট ম্যাচ জিতেছি বড় দলের সঙ্গে, এটা একটা উন্নতি। বিদেশে গিয়ে যে আমরা জিততে পারি, সেটার একটা আভাস পেয়েছি। তাই বলে টেস্টে যে আমরা একটা ভালো দল হয়ে গেছি সেটা প্রশ্নেই উঠে না। সংস্কৃতি গড়ে উঠতে সময় লাগবে, প্রায় ২৬ বছর লেগে গেছে ভারতের প্রথম ম্যাচ জিততে, এত অস্থির হলে হবে না।'

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে অ্যান্টিগা টেস্টে হারের পর সেন্ট লুসিয়া টেস্টেও হারের প্রহর গুনছে টাইগাররা। তবে এবারের সিরিজের পারফরম্যান্সে খুব বেশি হতাশ নন বিসিবি বস। জানালেন, আমরা চাইব দল জিতুক। কিন্তু ওয়েস্ট ইন্ডিজে হেরে গেলে খুব খারাপ অবস্থা, এটার সাথে আমি একমত না। সারা জীবন তো হেরেই এসেছি। বরং প্রথম টেস্টের পারফরম্যান্স আগের চেয়ে ভালো। আমাদের এখনও অনেক পথ বাকি আছে। এই সংস্কৃতি গড়ে উঠতে সময় লাগবে।