বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সাবেক সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেছেন, ‘ক্ষমতা প্রয়োজন মানুষের স্বার্থ রক্ষার জন্য। তবে তা ব্যবহার হচ্ছে ব্যক্তিস্বার্থে। এ জন্য যেনতেন উপায়ে ক্ষমতায় যাওয়ার প্রতিযোগিতা চলছে। এই প্রতিযোগিতাই দেশকে ডোবাচ্ছে। মানুষকে বাঁচানোর উপায় হলো বারবার বরুণ রায়দের মতো জনগণের কাছে ফিরে আসা। তাঁদের নিয়ে ভাবা এবং আদর্শের রাজনীতি করা। রাজনীতিকে তাহলে বাঁচানো যাবে।’

বৃহস্পতিবার রাতে সুনামগঞ্জ পৌরসভার মুক্তমঞ্চে প্রয়াত বিপ্লবী কমরেড বরুণ রায়ের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে তিন দিনব্যাপী আয়োজনের সমাপনী আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম আরও বলেন, ‘বরুণ রায় সংসদ সদস্য ছিলেন। দলের কেন্দ্রীয় কমিটিতে আমরা একসঙ্গে কাজ করেছি। আমাদের জাতিকে রক্ষা করতে হলে তাঁদের মতো মানুষকে বারবার স্মরণ করতে হবে। তাঁদের জীবনী থেকে শিক্ষা নিতে হবে।’

নারীনেত্রী বরুণ রায়ের সহধর্মিণী শীলা রায়ের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন সুনামগঞ্জ-৪ আসনের এমপি পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্‌, গণতন্ত্রী পার্টির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ব্যারিস্টার আরশ আলী, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ সভাপতি ডা. ফৌজিয়া মোসলেম, সিপিবি নেতা বেদানন্দ ভট্টাচার্য, শিক্ষাবিদ ধূর্জটি কুমার বসু, পরিমল কান্তি দে, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক পীর মতিউর রহমান, জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক রুহুল তুহিন, জেলা মহিলা পরিষদের সভাপতি গৌরী ভট্টাচার্য, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হায়দার চৌধুরী লিটন প্রমুখ। অনুষ্ঠানের শুরুতে 'বরণীয় বরুণ রায়' স্মারকগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন অতিথিরা।

জেলা উদীচীর সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন কমরেড বরুণ রায় জন্মশতবর্ষ উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব এনাম আহমদ ও সুখেন্দু সেন।