নোয়াখালীতে বিমানবন্দর নির্মাণের দাবি দীর্ঘদিনের। প্রায় ৪০ লাখ জনসংখ্যা অধ্যুষিত নোয়াখালী জেলার ৫ লক্ষাধিক মানুষ প্রবাসী। এ ছাড়া বৃহত্তর নোয়াখালীর ফেনী ও লক্ষ্মীপুর জেলায় রয়েছে আট লাখের মতো প্রবাসী। ইউরোপ, আমেরিকা, মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থান করছেন বৃহত্তর নোয়াখালীর মানুষ। এখানে বিমানবন্দর নির্মাণ হলে বৃহত্তর নোয়াখালী ছাড়াও পার্শ্ববর্তী ভোলা, চাঁদপুর ও কুমিল্লা দক্ষিণ অংশের বিপুলসংখ্যক মানুষ এই বিমানবন্দরের সুবিধা নিতে পারবেন।
নোয়াখালী জেলার জন্য পর্যটনের স্লোগান- 'নিঝুম দ্বীপের দেশ নোয়াখালী'। নিঝুম দ্বীপের নয়নাভিরাম সৌন্দর্য অবলোকনে দেশি-বিদেশি পর্যটকদের সহজে আসা-যাওয়ার জন্য এখানে বিমানবন্দর নির্মাণ জরুরি। এ ছাড়া নোয়াখালী উপকূলে রয়েছে সেনা প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্বর্ণদ্বীপ এবং রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর আশ্রয়কেন্দ্র ভাসানচর। বিমানবন্দর হলে ভাসানচরে জাতিসংঘের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের সহজে যাতায়াত এবং স্বর্ণদ্বীপের সেনা প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে সেনা কর্মকর্তাদের যাতায়াত সহজ হবে।
নোয়াখালীর দক্ষিণে রয়েছে বিশাল সমুদ্র এবং এই সমুদ্রকেন্দ্রিক নোয়াখালীর রয়েছে সুনীল অর্থনীতির অপার সম্ভাবনা। সুনীল অর্থনীতিকেন্দ্রিক নোয়াখালীর দক্ষিণ অংশের সমুদ্রের তলদেশের সম্পদ, গ্যাস ও জ্বালানি আহরণের ক্ষেত্রেও দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞ এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ের কর্মকর্তাদের আশা-যাওয়ার নিমিত্তে এখানে বিমানবন্দর নির্মাণ অত্যন্ত যৌক্তিক। নোয়াখালীতে বিমানবন্দর নির্মাণে ২০১৭ সালে বিমান মন্ত্রণালয়ে ডিও লেটার দিয়েছিলেন বর্তমান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এবং ২০১৮ সালে নোয়াখালী প্রস্তাবিত বিমানবন্দরের রানওয়ে পরিদর্শনে এসেছিলেন তৎকালীন বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী শাজাহান কামাল। চলতি বছরের শুরুতে বর্তমান বিমান পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী নোয়াখালীতে বিমানবন্দর নির্মাণের স্থান পরিদর্শন করে গেছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত সুনির্দিষ্ট অগ্রগতি লক্ষ্য করা যায়নি।
ষাটের দশকে নোয়াখালী জেলা শহর মাইজদী থেকে ১৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে ধর্মপুর ইউনিয়নের উত্তর ওয়াপদা বাজারের দক্ষিণ পাশে একটি রানওয়ে নির্মাণ করা হয়েছিল ফসলি জমিতে কীটনাশক ছিটানোর জন্য। কিন্তু আশির দশকের পর থেকে এই রানওয়ের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। সম্প্রতি বাংলাদেশ বিমানবাহিনী পরিত্যক্ত নোয়াখালী বিমানবন্দরে সীমিত আকারে তাদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। দেশে অনেক উন্নয়ন কাজ চলছে। এ অবস্থায় যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ করার লক্ষ্যে দ্রুত নোয়াখালীতে একটি আন্তর্জাতিকমানের বিমানবন্দর নির্মাণের দাবি জানাচ্ছি।
মাইজদী, নোয়াখালী