সরকারি রিক্রুটিং এজেন্সি বোয়েসেলের মাধ্যমে ‘বিনা খরচে’ মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানো শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার প্রথম ধাপের ৩০ জন কর্মী মালয়েশিয়ায় পৌঁছেছেন। বোয়েসেল জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত এক হাজার কর্মীর চাহিদাপত্র পাওয়া গেছে। সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১০ হাজার কর্মী পাঠানোর সুযোগ রয়েছে।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ১০টায় যাত্রা করে স্থানীয় সময় বিকেল চারটায় কৃষিখাতের ৩০ কর্মী মালয়েশিয়ায় পৌঁছেছেন। কুয়ালালামপুরে তাঁদের স্বাগত জানান বাংলাদেশের হাইকমিশনার মো. গোলাম সারোয়ার, লেবার মিনিস্টার নাজমুস সাদাত সেলিম।

ঢাকার বিমানবন্দরে কর্মীদের বিদায় জানান বোয়েসেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মল্লিক আনোয়ার হোসেন। তিনি জানান, এক হাজার কর্মীর চাহিদাপত্র এসেছে। পরীক্ষামূলকভাবে ৩০ জন পাঠানো হয়েছে।

‘স্পেশাল ওয়ান রিক্রুটমেন্ট প্রজেক্ট’-এর আওতায় বাংলাদেশ থেকে সরকারিভাবে বিভিন্ন খাতে ১০ হাজার কর্মী নিয়োগের আগ্রহের কথা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছে মালয় সরকার। জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) ডাটাবেজে নিবন্ধনকারী কর্মীদের মধ্যে লটারির মাধ্যমে নিয়োগ করা হবে। কর্মী প্রতি ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে ৪৬ হাজার টাকা। ৫৫০ জন কর্মীর চাহিদপত্র দেওয়া মালয়েশিয়ার ইউনাইটেড প্ল্যান্টেশন (ইউপি) কোম্পানি সব খরচ বহন করবে। ফলে এই প্রতিষ্ঠানে কাজ করতে যাওয়া কর্মীরা বিনা খরচে মালয়েশিয়া যেতে পারবেন।