করোনাভাইরাস মহামারির কারণে বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন সংসদের বিরোধীদলীয় উপনেতা জিএম (গোলাম মোহাম্মদ) কাদের। 

বৃহস্পতিবার সংসদ অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে অংশ নিয়ে তিনি এ দাবি করেন। ৮ নভেম্বর শুরু হওয়া দেশের সংসদীয় ইতিহাসের প্রথম বিশেষ অধিবেশন ছিল ১০ কার্যদিবসের।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত এই বিশেষ অধিবেশনে প্রথম এবং শেষ চার কার্যদিবস চলে সাধারণ অধিবেশনের মতোই। সংসদ কক্ষে জাতির পিতার ছবিসহ এটাই সংসদের প্রথম অধিবেশন। বৃহস্পতিবার রাতে অধিবেশন সমাপনী সম্পর্কে রাষ্ট্রপতির আদেশ পাঠ করে শোনানোর মধ্য দিয়ে স্পিকার অধিবেশন সমাপ্তি ঘোষণা করেন। এর আগে ১৯৭৫ সালের ২৫ জানুয়ারি সংসদে সংবিধানের চতুর্থ সংশোধনী প্রস্তাব পাসের সময় বঙ্গবন্ধুর ভাষণ অধিবেশন কক্ষে শোনানো হয়।

৯ নভেম্বর অধিবেশনে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম নিয়ে স্মারক বক্তৃতা দেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। ওই দিনই জাতির পিতাকে শ্রদ্ধা জানাতে সংসদে একটি প্রস্তাব আনেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই প্রস্তাব নিয়ে সংসদে প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, বিরোধীদলীয় নেতাসহ সরকারি ও বিরোধীদলীয় ৭৯ সংসদ সদস্য ১৯ ঘণ্টা ৩ মিনিট আলোচনা করেন। ১৫ নভেম্বর সংসদে প্রস্তাবটি গ্রহণ করা হয়। এর পরদিন থেকে সংসদের স্বাভাবিক কার্যক্রম শুরু হয়।

করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অধিবেশনের কার্যক্রম চলে। শুধুমাত্র ৯ নভেম্বর অধিবেশনে কভিড-১৯ নেগেটিভ সদস্যরা অংশ নেন। এরপর তালিকা অনুযায়ী তারা যোগ দেন। এই অধিবেশনে ৯টি সরকারি বিল পাস হয়েছে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার দাবি জিএম কাদেরের :এদিকে সমাপনী বক্তব্যে অংশ নিয়ে বিরোধীদলীয় উপনেতা জিএম কাদের বলেন, মার্চ থেকে স্কুল-কলেজ বন্ধ। অটো পাস চালু করা হয়েছে। অফিস-আদালত বন্ধ করা হচ্ছে না। শুধু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার যৌক্তিকতা দেখি না। পরীক্ষা কার্যক্রম বন্ধ রেখে অটো পাসে মেধাবীদের প্রতি অবিচার করা হচ্ছে। যারা ক্লাস করতে চায় তাদের জন্য খুলে দেওয়া উচিত। যারা পরীক্ষা দিতে চায় তাদের পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ দেওয়া উচিত। আমাদের দায়দায়িত্ব আছে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে।








মন্তব্য করুন