জাতীয় সংসদের চলতি বছরের প্রথম এবং শীতকালীন অধিবেশন বসছে সোমবার। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের বৈঠক শুরু হবে বিকেল সাড়ে চারটায়।

একাদশ জাতীয় সংসদের একাদশ এই অধিবেশনটি করোনাকালে অনুষ্ঠিত অন্য চারটির মতোই যতদূর সম্ভব সংক্ষিপ্ত হবে বলে সংসদ সচিবালয় সূত্র জানিয়েছে।

সাংবিধানিক নির্দেশনায় বছরের প্রথম অধিবেশনের শুরুর দিন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সংসদে ভাষণ দেবেন। রাষ্ট্রপতির ভাষণের পর সংসদ সদস্যরা অধিবেশন জুড়ে ওই ভাষণের ওপর আনা ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ বেবেন। সাধারণত বছরের প্রথম অধিবেশন দীর্ঘ হলেও বৈশ্বিক করোনা মহামারির কারণে এবারের অধিবেশন সংক্ষিপ্ত হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম বলেন, করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে ১২ থেকে ১৪ কার্যদিবসের মধ্যে এবারের অধিবেশন শেষ হতে পারে। প্রথম দিন সোমবার বিকেল সাড়ে চারটায় বৈঠক শুরু হলেও এরপর থেকে বৈঠক শুরু হবে বেলা ১১টা থেকে। শুরুতেই সভাপতিমণ্ডলী মনোনয়ন এবং শোক প্রস্তাব উত্থাপনের পর রাষ্ট্রপতি সংসদে ভাষণ দেবেন। এরপর বৈঠক মুলতবি করা হবে।

এদিকে অধিবেশনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে মহামারিকালের অন্য চারটি অধিবেশনের মত এবারও সীমিত সংখ্যক সংসদ সদস্য অংশ নিচ্ছেন বলে জানা গেছে। প্রথম দিন করোনাভাইরাস পরীক্ষায় নেগেটিভ রিপোর্ট পাওয়া সব সংসদ সদস্য অংশ নিতে পারবেন। এরপর রোস্টার করে প্রতি কার্যদিবসে সর্বোচ্চ ৯০ জন পর্যায়ক্রমে বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন।
সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তাদেরও অধিবেশন চলার সময় সংসদ ভবনে প্রবেশ সীমিত থাকবে। কেবল অধিবেশন সংশ্নিষ্ট কর্মচারীরা সংসদে ঢুকতে পারবেন। তবে তাদের করোনাভাইরাস নেগেটিভ রিপোর্ট থাকতে হবে।

সংসদ অধিবেশনের সংবাদ সংগ্রহ করতে সাংবাদিকরা প্রথম একদিন সংসদ ভবনে প্রবেশ করতে পারবেন। শুধু রাষ্ট্রপতির ভাষণের সময় সংসদ ভবনে প্রবেশের অনুমতি পাবেন সাংবাদিকরা। এজন্য প্রত্যেক গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান থেকে একজন করে জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের ব্যবস্থাপনায় করোনাভাইরাস পরীক্ষা করানো হয়েছে। রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আনা প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা ছাড়াও অধিবেশনে কয়েকটি বিল উত্থাপন ও পাসের সম্ভাবনা রয়েছে বলে সংসদ সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে।

মন্তব্য করুন