ঢাকা বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

জলবায়ু পরিবর্তনের ভয়ংকর প্রভাব আমাজনে

জলবায়ু পরিবর্তনের ভয়ংকর প্রভাব আমাজনে

ব্রাজিলের পুরাকুয়ারা হ্রদে জলের সন্ধান করছেন ইভালমির সিলভা। ছবি: রয়টার্স

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০২ ডিসেম্বর ২০২৩ | ২১:১৪ | আপডেট: ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩ | ২২:২৮

আমাজনের যে অংশে এখনও মানুষের পা পড়েনি, সেই অংশেও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব পড়েছে- এমনটাই জানাচ্ছেন গবেষকরা। তারা বলছেন, আমাজনে জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে খরার প্রভাব ২০২৬ সাল পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে। খবর রয়টার্সের 

গবেষকরা জানাচ্ছেন, চার দশক ধরে উষ্ণ ও শুষ্ক আবহাওয়ার কারণে পৃথিবীর ফুসফুসখ্যাত চিরহরিৎ বন আমাজনের পাখির আকার ছোট হয়েছে এবং ডানা বড় হয়েছে। শুধু পাখির ক্ষেত্রে নয়, সম্ভবত অন্য প্রজাতির ক্ষেত্রেও এমনটা ঘটছে। ছবির মাধ্যমে দেখে নেওয়া যাক আমাজনের জলবায়ু পরিরর্তনের প্রভাব-

ব্রাজিলের টেফে লেকে একটি মৃত ডলফিনকে দেখা যায়, যেটি উচ্চ তাপমাত্রা এবং খরার কারণে আক্রান্ত হয়ে মারা যায়। ছবি: রয়টার্স

টেফে লেকে একটি মৃত ডলফিনকে দেখা যাচ্ছে, যেটি উচ্চ তাপমাত্রা ও খরার প্রভাবে মারা গেছে। ছবি: রয়টার্স 

বলিভিয়ার সান্তা দে লা সিয়েরার রিও গ্র্যান্ডে অগভীর জলে আটকে পড়া এক গোলাপী ডলফিনকে উদ্ধার করে স্বেচ্ছাসেবকরা। ছবি: রয়টার্স 

ব্রাজিলের পুরাকুয়ারা হ্রদে জলের সন্ধান করছেন ইভালমির সিলভা। ছবি: রয়টার্স 

 ব্রাজিলের অ্যামাজনাস রাজ্যের কেরিরো দা ভার্জের পারুয়া নদীর শুকনো তলদেশে ডিঙি নৌকা দেখা যাচ্ছে। ছবি: রয়টার্স 

ব্রাজিলের রিও নিগ্রো নদীর শুষ্ক তীরে একটি নদীতীরবর্তী সম্প্রদায়। ছবি: রয়টার্স 

 ব্রাজিলের অ্যামাজনাস রাজ্যের ক্যারিরো দা ভার্জেয়ার পারাউয়া নদীর কাছে খরার সময় পানি সংগ্রহ করছেন সাও ফ্রান্সিসকো গ্রামের লোকজন। ছবি: রয়টার্স 

উচ্চ তাপমাত্রা ও খরার কারণে মারা যাওয়া ডলফিন পরীক্ষা করছেন একজন গবেষক। ছবি: রয়টার্স

আরও পড়ুন

×