রাজনীতি

শেখ হাসিনার বুদ্ধির খেলায় মার খেয়েছে বিএনপি: মতিয়া চৌধুরী

প্রকাশ: ০৯ জুন ২০১৮      

শেরপুর প্রতিনিধি

নারী সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী- সমকাল

কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বলেছেন, নির্বাচন ফুটবল খেলার মতো। কোনো দল খেলতে না এলে ম্যাচ বাতিল হয়ে যায় না। ওয়াক ওভার দেওয়া হয়। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে তাই হয়েছে। ওই নির্বাচনে বিএনপি শেখ হাসিনার কাছে বুদ্ধির খেলায় মার খেয়েছে। তিনি বলেন, গ্রামে একটি কথা আছে- ঠকলে বাপরে বলতে নেই। এখন নালিশ করে লাভ নেই। নালিশ করলে বালিশ পাবেন। শনিবার দুপুরে শেরপুরের নকলা উপজেলার চন্দ্রকোনা ইউনিয়নের রাজলক্ষ্মী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ঈদ উপহার বিতরণকালে নারী সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে পাঠানোর পেছনে খেলা রয়েছে। যখন ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বানচাল করতে পারল না, যখন সন্ত্রাস ও জঙ্গি দিয়ে আমাদের সঙ্গে পারল না, তখন রোহিঙ্গাদের এখানে পাঠিয়ে দেওয়া হলো। যদি সেদিন শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় না দিত, তাহলে বলা হতো শেখ হাসিনা মুসলমানদের ঠাঁই দেয়নি। আসলে পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই, মিয়ানমার এবং আরও কিছু আন্তর্জাতিক চক্র রোহিঙ্গাদের এদেশে পাঠিয়েছে। যাতে আমাদের অর্থনীতি ভেঙে পড়ে এবং দেশ অস্থিতিশীল হয়ে যায়।

মতিয়া চৌধুরী বলেন, জিয়া এবং খালেদা জিয়ার নিষ্ফ্ক্রিয়তার কারণে মিয়ানমার বলতে সাহস পেয়েছে রোহিঙ্গারা বাঙালি। কিন্তু আমাদের নেতা শেখ হাসিনা সারা পৃথিবীকে বোঝাতে সক্ষম হয়েছেন, রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের নাগরিক। আমরা মানবতার খাতিরে তাদের আশ্রয় দিয়েছি। তাই আজ, আমেরিকা, চীন, রাশিয়া ও তুরস্ক বলেছে মিয়ানমার খারাপ কাজ করেছে। সারা পৃথিবীতে তারা একঘরে হয়ে গেছে। 

সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন শেরপুরের জেলা প্রশাসক ড. মল্লিক আনোয়ার হোসেন, পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীম, নকলার ইউএনও রাজিব সরকার, উপজেলা চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান সোহাগ, পৌর মেয়র হাফিজুর রহমান লিটন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম জিন্নাহ প্রমুখ।

এদিন মন্ত্রী গনপদ্দি, বানেশ্বর্দী, চন্দ্রকোনা, পাঠাকাটা, টালকী, চর অষ্ট্রধর ইউনিয়নে ৫১টি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং দুস্থ নারীদের মাঝে ঈদের নতুন কাপড় ও নগদ টাকা বিতরণ করেন।