আওয়ামী লীগ সুবিধাভোগীদের পার্টি নয়: কাদের

প্রকাশ: ১৭ জুন ২০১৯     আপডেট: ১৭ জুন ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

ফাইল ছবি

আওয়ামী লীগ সুবিধাভোগীদের পার্টি নয় বলে মন্তব্য করেছেন দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ত্যাগী কর্মীদের মূল্যায়ন এবং নতুন সদস্য সংগ্রহের তাগিদ দিয়ে তিনি বলেছেন, দলের দুঃসময়ে সুবিধাভোগী, বসন্তের কোকিলদের হাজার পাওয়ারের বাতি জ্বেলেও খুঁজে পাওয়া যাবে না। তাই নতুন কর্মী সৃষ্টি করতে হবে। কর্মীরাই আওয়ামী লীগের প্রাণ। তারাই দুঃসময়ে দলকে বাঁচিয়ে রাখে।

সোমবার ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের যৌথ সভায় ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। আগামী ২৩ জুন আওয়ামী লীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী সফলভাবে উদযাপনের লক্ষ্যে করণীয় নির্ধারণে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বারবার তাগিদ দেওয়ার পরও সদস্য সংগ্রহ হচ্ছে না। গত নির্বাচনে যারা নৌকার পক্ষে কাজ করেছেন; তাদের সদস্য হিসেবে ধারণ করতে হবে। না হলে কিছুদিন পরে তারা দলকে ভুলে যাবে। নতুন সদস্য সংগ্রহের তাগিদ দিয়ে কাদের বলেন, পকেট কমিটি কারও কাজে আসবে না। আওয়ামী লীগ সুবিধাভোগীদের পার্টি নয়। জোড়াতালি দিয়ে আওয়ামী লীগ চলতে পারে না। নতুন কর্মী সৃষ্টি করতে হবে। কর্মীরাই আওয়ামী লীগের প্রাণ। কর্মীরা ঐক্যবদ্ধ না থাকলে এক-এগারোতে শেখ হাসিনা কারামুক্তি পেতেন না।

ত্যাগী কর্মীদের মূল্যায়নের আহ্বান জানিয়ে তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগের আত্মা পড়ে আছে তৃণমূলে। ত্যাগী, অসুস্থ ও অসচ্ছল কর্মীদের পাশে দাঁড়ান। দলে অনেক সাহসী, ত্যাগী ও দুঃসময়ের নেতা ছিলেন; যারা আজ নেই। নিবেদিতপ্রাণ এসব নেতার শূন্যস্থান পূরণ হয়েছে কি-না; নগর কমিটির নেতাদের কাছে সে ব্যাপারেও জানতে চান ওবায়দুল কাদের। নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, প্রত্যেকে দলের স্বার্থে কাজ করুন। প্রত্যেক নেতার মধ্যে মানবিক গুণাবলি থাকতে হবে। ক্ষমতার দাপট দেখালে কেউ মনে রাখবে না।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেতৃত্বের প্রশংসা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনা নিজের যোগ্যতা ও দক্ষতা দিয়ে নিজেকেই অতিক্রম করেছেন। তার নেতৃত্ব শুধু বাংলাদেশে নয়, সারা পৃথিবীতে প্রতিষ্ঠিত হয়ে গেছে।

দুর্নীতির মামলায় কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদের সাম্প্রতিক বক্তব্যের জবাবে কাদের বলেন, যদি আদালত খালেদা জিয়াকে জামিন দিতে চান; তাতে সরকারের হস্তক্ষেপ করার প্রশ্নই ওঠে না। সরকার বিচার বিভাগের স্বাধীনতায় শ্রদ্ধাশীল।

সম্প্রতি সংসদে যোগ দেওয়া বিএনপির এমপিদের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, এমন বক্তব্য হাস্যকর। নির্বাচিত সংসদকে যারা অবৈধ বলে; আদালতের রায়ে তাদের জন্মই অবৈধ। বিএনপির জন্ম, সরকার গঠনসহ সবই অবৈধ ছিল বলেও মন্তব্য করেন ওবায়দুল কাদের।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ সভাপতি আবুল হাসনাতের সভাপতিত্বে যৌথ সভায় বক্তব্য দেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মির্জা আজম এমপি, ঢাকা দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ প্রমুখ।