জিয়া যুদ্ধাপরাধীদের মুক্তি দিয়ে পুনর্বাসিত করেছিলেন: হানিফ

প্রকাশ: ১৩ আগস্ট ২০১৯      

অনলাইন ডেস্ক

ফাইল ছবি

আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেছেন, জিয়াউর রহমান কখনোই মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না। মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষেও কাজ করেননি।

তিনি বলেন, ৭৫’র ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে হত্যার পর জিয়াউর রহমান পাকিস্তানের পক্ষে কাজ করেছেন। দালাল আইন বাতিল করে সাড়ে এগারো হাজার যুদ্ধাপরাধীকে কারাগার থেকে মুক্তি দিয়ে তাদেরকে পুনর্বাসন করেছেন। এসব কারণে জিয়াউর রহমানকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে ভাবা যায় না।

মঙ্গলবার কুষ্টিয়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের নবনির্মিত ভাস্কর্যের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। নগরীর কালেক্টরেট চত্বরে সকাল ১০টার দিকে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে তিনি ভাস্কর্যটি উদ্বোধন করেন। খবর বাসসের

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শুধুমাত্র আওয়ামী লীগের সম্পদ নন, তিনি গোটা বাঙালি জাতির সম্পদ। বঙ্গবন্ধুকে অস্বীকার করা মানে স্বাধীন বাংলাদেশকে অস্বীকার করা। প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দল ও শ্রেণি-পেশার মানুষের নৈতিক দায়িত্ব হল বঙ্গবন্ধুকে সম্মান করা।

হানিফ বলেন, বঙ্গবন্ধুকে যারা জাতির পিতা হিসেবে স্বীকার করে না তারা প্রকৃতপক্ষে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও স্বাধীন বাংলাদেশের অস্তিত্বকেই বিশ্বাস করে না।

জেলা প্রশাসন আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া-১ আসনের সাংসদ আ.ক.ম সরোয়ার জাহান বাদশাহ্, কুষ্টিয়া-৪ আসনের সাংসদ ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ, পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাত, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাজী রবিউল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সদর উদ্দীন খান, সাধারণ সম্পাদক আসগর আলী প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন।

অনুষ্ঠানে ভাস্কর্য নির্মাণে সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠান বিআরবি গ্রুপের চেয়ারম্যান মজিবর রহমান, পৌর মেয়র আনোয়ার আলী, দৌলতপুরের উপজেলা চেয়ারম্যান এজাজ আহমেদ মামুন, কুমারখালীর উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান খানসহ রাজনীতিবিদ, প্রশাসনিক কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক, সাংবাদিকসহ সমাজের বিশিষ্টজনরা উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা শেষে আবৃত্তি পরিষদের শিল্পীরা আবৃত্তি পরিবেশন করেন।