ওয়ার্কার্স পার্টির ছয় নেতার কংগ্রেসের প্রতিনিধিত্ব বাতিল

প্রকাশ: ৩০ অক্টোবর ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

দলের দশম কংগ্রেস বর্জনের আহ্বান জানিয়ে সংবাদপত্রে বিবৃতি দেওয়া বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির ছয় কেন্দ্রীয় নেতার কংগ্রেসের প্রতিনিধিত্ব বাতিল করা হয়েছে। দলীয় শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে তাদের দল থেকে বহিষ্কার করার বিষয়ে কংগ্রেসে আলোচনা করা হবে। আর কংগ্রেস প্রতিনিধিদের সংখ্যাগরিষ্ঠের মতামতের ভিত্তিতে আগামী কেন্দ্রীয় কমিটি এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে।

বুধবার রাজধানীর তোপখানা রোডে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় চত্বরে সংবাদ সম্মেলনে ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি এ কথা জানিয়েছেন। আগামী ২ থেকে ৫ নভেম্বর ঢাকায় অনুষ্ঠেয় দলের দশম কংগ্রেস উপলক্ষে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন দলের পলিটব্যুরোর সদস্য আনিসুর রহমান মল্লিক, কামরুল আহসান এবং কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য তপন দত্ত চৌধুরী।

দশম কংগ্রেস প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে বিমল বিশ্বাসকে আগেই দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। আর ওই ছয় নেতার কংগ্রেসের প্রতিনিধিত্ব বাতিল করা হয়েছে। তবে কতিপয় নেতার দলবিরোধী তৎপরতায় কংগ্রেসে কোনো প্রভাব পড়বে না।

তিনি বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে দলীয় সভাপতি রাশেদ খান মেনন এমপির একটি বক্তব্যে ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিল। দলীয় সভাপতি তার বক্তব্যের ব্যাখ্যা দেওয়ায় এ নিয়ে সৃষ্ট বিভ্রান্তি ও বিতর্কের অবসান ঘটেছে। এখন ১৪ দলে কোনো বিরোধ নেই। আদর্শিক জোট ১৪ দল বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ আছে। এক প্রশ্নের জবাবে বাদশা বলেন, আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোট করায় ওয়ার্কার্স পার্টি আগের থেকে শক্তিশালী হয়েছে।

দশম কংগ্রেসের প্রস্তুতি তুলে ধরে তিনি বলেন, ঢাকায় এই কংগ্রেস অনুষ্ঠিত হবে। ২ নভেম্বর সকাল ১১টায় রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে কংগ্রেস উদ্বোধন করবেন দলীয় সভাপতি রাশেদ খান মেনন। এবারের কংগ্রেসের প্রতিপাদ্য 'সামাজিক ন্যায্যতা-সমতা প্রতিষ্ঠাসহ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক জনগণতান্ত্রিক আধুনিক বাংলাদেশ গড়ে তোল'।

ওয়ার্কার্স পার্টির এই নেতা জানান, কংগ্রেস সামনে রেখে অক্টোবরজুড়ে দলের ৫৭টি সাংগঠনিক জেলা ও তিনটি কেন্দ্রীয় শাখাসহ মোট ৬০টি সম্মেলন হয়েছে, যা অতীতের থেকে বেশি। এ ছাড়া সেপ্টেম্বরে দলের নিম্নতম ইউনিটে সহস্রাধিক শাখা সম্মেলনও হয়েছে। তিনি বলেন, কংগ্রেস নিয়ে এবার দলের মধ্যে আগ্রহ-উদ্দীপনা অনেক বেশি। এবারের কংগ্রেসে আট শতাধিক প্রতিনিধি-পর্যবেক্ষক ও দেশি-বিদেশি অতিথি উপস্থিত থাকবেন। কংগ্রেসে প্রাথমিক সদস্যদের মধ্য থেকে আনুপাতিক হারে প্রতিনিধি নির্বাচন করা হয়েছে। কেবল তারাই কংগ্রেসে অংশ নিতে পারবেন।

এর আগে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ উত্থাপন করে কংগ্রেস প্রত্যাখ্যানের পাশাপাশি অন্য নেতাকর্মীদের তা বর্জনের আহ্বান জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছিলেন ওয়ার্কার্স পার্টির ছয় কেন্দ্রীয় নেতা। তারা হচ্ছেন দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম পলিটব্যুরোর দুই সদস্য নুরুল হাসান ও ইকবাল কবির জাহিদ এবং কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য জাকির হোসেন হবি, মোফাজ্জেল হোসেন মঞ্জু, অনিল বিশ্বাস ও তুষার কান্তি দাস। একই অভিযোগ এনে দলের পলিটব্যুরোর সদস্য ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক বিমল বিশ্বাস দলের প্রাথমিক সদস্যপদ প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন। পরে তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়।