৭৮৭ দিন পর কার্যালয় ছেড়ে বাসায় গেলেন রিজভী

প্রকাশ: ২৬ মার্চ ২০২০   

সমকাল প্রতিবেদক

কার্যালয় ছেড়ে  বেরিয়ে আসছেন রুহুল কবির রিজভী

কার্যালয় ছেড়ে বেরিয়ে আসছেন রুহুল কবির রিজভী

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কারামুক্তির পরের দিন দলীয় কার্যালয় ছাড়লেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। টানা ৭৮৭ দিন পর  বৃহস্পতিবার দুপুরে দলীয় কার্যালয় ছেড়ে বাসায় উঠেছেন তিনি। এখন থেকে দলীয় প্রয়োজনে যতটুকু সময় দরকার, ততটুকু সময় কার্যালয়ে থাকবেন বলে জানিয়েছেন রিজভী।

কার্যালয় ছেড়ে যাওয়ার সময় তিনি বলেন, যখন খুবই একটি রাজনৈতিক ক্রান্তিকাল শুরু হয়েছিল, তখন থেকেই আমি কার্যালয়ে অবস্থান করছিলাম। একাধারে ৭৮৭ দিন পার্টি অফিসে অবস্থান করেছি। দলের নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার আর হয়রানির মধ্যে আমি এ কার্যালয়ে অবস্থান নিয়ে দলীয় কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতে থাকি। ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে কারাগারে নিয়ে যাওয়া হলো। তখন থেকেই আমার একটা ব্রত ছিল, খালেদা জিয়া মুক্ত না হওয়া পর্যন্ত আমি দলীয় কার্যালয়ে অবস্থান করব এবং সারাদেশের নেতাকর্মীরা যেন তাদের রাজনৈতিক কোনো কাজের জন্য দলীয় কার্যালয়ে এসে বিমুখ না হয়, কোনো নেতাকে পেল না- এ রকম পরিস্থিতি যেন না হয়। সবকিছু বিবেচনা নিয়েই আমি এখানে অবস্থান করেছি। যে ব্রত ছিল দেশনেত্রীর মুক্তির পরে আমি বাসায় ফিরব। গত বুধবার খালেদা জিয়া মুক্ত হয়েছেন। সেজন্য আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি, বৃহস্পতিবার বাসায় ফিরে যাব।

রিজভী জানান, বাসায় গেলেও প্রতিদিন তিনি কার্যালয়ে আসবেন। মোহাম্মদপুরের শ্যামলীর আদাবর ঢাকা হাউজিং সোসাইটির ভাড়া বাসায় উঠেছেন রিজভী।

নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয় দুই বছর এক মাস ২৬ দিন অবস্থানকালে রিজভী তৃতীয় তলায় দপ্তরের একটি ছোট্ট কক্ষে থাকতেন। এই দীর্ঘ সময়কালে তার যেসব বইপত্র ছিল তা কয়েকটি বস্তায় ভরে নিজের ছোট গাড়িতে তুলে বাসায় নেওয়া হয়েছে।

২০১৮ সালের ৩০ জানুয়ারি রাতে মোহাম্মদপুরের বাসা থেকে নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আসেন রুহুল কবির রিজভী। এই অফিসে রাতদিন অবস্থান করে তিনি দেশের পরিস্থিতি নিয়ে দলের প্রতিক্রিয়া ও নির্দেশাবলি তুলে ধরেছেন গণমাধ্যমের কাছে।

এই কার্যালয় থেকে রিজভী বিভিন্ন সময়ে পুলিশ-আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দৃষ্টি এড়িয়ে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে মিছিলের নেতৃত্ব দিয়েছেন রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে। এ রকম মিছিলে পুলিশি লাঠিচার্জে দুই দফা গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন তিনি। পরে আবার হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নিয়ে এই কার্যালয়েই চলে এসেছেন।

তিনি বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক ও সংবাদপত্রে রাজনৈতিক বিভিন্ন প্রবন্ধও লিখেছেন। ওইসব প্রবন্ধের সংকলন 'সময়ের স্বরলিপি' প্রকাশ করেছেন এই অফিসে থেকেই, যার প্রকাশনা অনুষ্ঠান হয় কার্যালয়ের নিচতলায় ৬ মার্চ।

রিজভীর এই দীর্ঘ সময়ের অবস্থানকালে মাঝেমধ্যে তার সহধর্মিণী আনজুমান-আরা আইভি কার্যালয়ে এসে কিছু সময় স্বামীর দেখভাল করতেন।