আল্লাহর রহমতে আমরা অনেক ভাল আছি: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশ: ০৪ এপ্রিল ২০২০   

সমকাল প্রতিবেদক

ওবায়দুল কাদের       -ফাইল ছবি

ওবায়দুল কাদের -ফাইল ছবি

করোনা নিয়ে কোনো অবস্থায় শঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, সারাবিশ্বে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। এ পর্যন্ত এই প্রাণঘাতী ভাইরাসে বিশ্বের ১১ লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন, প্রায় ৫৭ হাজার মানুষ মারা গেছেন। তবে আমাদের দেশ তুলনামূলকভাবে অনেক ভালো। ইতালি, স্পেন, যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্সের মত দেশে যে ভয়াবহ অবস্থা, সে তুলনায় আল্লাহর রহমতে আমরা অনেক ভাল আছি। এটা যথাসময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যথোপযুক্ত পদক্ষেপের কারণেই সম্ভব হয়েছে।

শনিবার সংসদ ভবনের নিজের সরকারি বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। করোনা সংকটের কারণে দলীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী অনলাইন ভিডিওবার্তার মাধ্যমে এই সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন তিনি।

করোনার প্রাদুর্ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মধ্যে ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনাকালে লোক জমায়েত না করার বিষয়ে সতর্ক করে দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সতর্ক থাকতে হবে। লক্ষ্য রাখতে হবে, আমরা যেন ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করতে গিয়ে অধিক লোক জমায়েতের মত বিপদজনক পথ বেছে না নেই। কোনো অবস্থায়ই জমায়েত করা যাবে না।

করোনাভাইরাসের কারণে কর্মহীন হয়ে পড়া অসহায় ও নিম্নআয়ের মানুষের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণের জন্য দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের পাশাপাশি সহযোগী সংগঠন নেতাকর্মীদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, তবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ত্রাণ কার্যক্রম চালাতে হবে। জমায়েত যাতে না হয় সেদিকেও লক্ষ্য রাখতে হবে।

কাদের বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৩১টি নির্দেশনা মেনে সবাই একযোগে এই অদৃশ্য শত্রুর মোকাবিলা করে চলেছি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে দেশ অচিরেই আরও ভালোর দিকে যাবে।

তিনি বলেন, এ ব্যাপারে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাকে সহযোগিতা করতে হবে। দলীয় নেতাকর্মীদের কাছে আমার আহ্বান, সুদিনের প্রত্যাশায় আজকের সাময়িক কষ্ট মেনে চলতে হবে। সুদিনের আশায় আমরা সাময়িক ত্যাগ স্বীকার করব, এটা যেন আমাদের মাথায় থাকে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে আমরা অবশ্যই এই মহাসংকট থেকে নিজেদের রক্ষা করতে পারব।

করোনা পরিস্থিতিতে সারাদেশে গণপরিবহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বৃদ্ধির কথা তুলে ধরে সেতুমন্ত্রী বলেন, ইতোপূর্বে সরকার ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সবধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছিল। এরই মধ্যে সরকার আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি বর্ধিত করেছে। এর ধারাবাহিকতায় জনসাধারণের স্বার্থ বিবেচনায় ১১ এপ্রিল পর্যন্ত দেশব্যাপী সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখার অনুরোধ করছি।

তিনি বলেন, সংকটে আমাদের দেশের পরিবহন অনেক গুরুত্বপূর্ণ ত্যাগ স্বীকার করেছে। এই সংকট আমাদের সবার। এই সংকট উত্তরণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৩১ দফা যে নির্দেশনা দিয়েছেন, মেনে চলবেন। ১১ তারিখ পর্যন্ত যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখবেন। পরবর্তী সিদ্ধান্ত পরে জানানো হবে। সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটির মধ্যে যানবাহনের ফিটনেস কিংবা ড্রাইভিং লাইসেন্সের মেয়াদ উত্তীর্ণ হলে জরিমানা ছাড়া নির্ধারিত ফি ও কর দিয়ে ৩০ জুন পর্যন্ত লাইসেন্স আবেদন করার সুযোগ দেওয়া হয়েছে বলেও জানান ওবায়দুল কাদের।