সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধায়নে ত্রাণ বিরতণের দাবি জানিয়েছেন বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ। শুক্রবার এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে পড়া গরিব দুস্থদের জন্য দেওয়া সরকারি খাদ্যসহায়তা অনেক জনপ্রতিনিধি আত্মসাৎ করছে। যা অত্যন্ত দুঃখজনক। সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধায়নে ত্রাণ দেওয়া হলে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তরা সহায়তা পাবে। সরকারের উদ্দেশ্যও সফল হবে।

দেশের সব উপজেলায় করোনাভাইরাস শনাক্তে পরীক্ষা চালু করার দাবি জানিয়েছেন বিরোধীদল জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদ। তিনি বলেছেন, করোনাভাইরাস দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়ায় যত দ্রুত সম্ভব প্রতি উপজেলায় পরীক্ষার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত। এক্ষেত্রে সরকারের পাশাপাশি বিত্তবানরাও এগিয়ে আসতে পারেন। এছাড়াও প্রবীণ ও স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে থাকা নাগরিকদের চিকিৎসা  সেবায় বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

বিরোধীদলীয় নেতা বলেছেন, করোনার সংক্রমণে সবচেয়ে বিপদে পড়েছেন খেটে খাওয়া মানুষ, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, কৃষি শ্রমিক, গার্মেন্টস ও শিল্প কারখানার শ্রমিক। সরকার ইতোমধ্যে গার্মেন্টসসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে আর্থিক প্রণোদনা ঘোষণা করেছেন। সারাদেশে ত্রাণ ও খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। এ জন্য সরকারকে ধন্যবাদ জানান রওশন এরশাদ। 

করোনার বিস্তার রোধে সরকারের নির্দেশনা পুরোপুরি মেনে চলতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন রওশন এরশাদ। যারা করোনা মহামারির মধ্যেও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন তাদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন। চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য পর্যাপ্ত নিরাপত্তা সরঞ্জাম (পিপিই) সরবরাহের দাবি জানান বিরোধীদলীয় নেতা।