আওয়ামী লীগ সরকার দেউলিয়া হয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। তিনি বলেছেন, তাদের অবস্থা এখন ভীষণ নড়বড়ে। একটু জোরে ধাক্কা দিতে পারলে সরকার ক্ষমতা থেকে পড়ে যাবে।

শনিবার ঢাকায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত এক যৌথ সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন। মওলানা ভাসানীর ৪৪তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ভাসানী অনুসারী পরিষদ, ছাত্র, যুব ও শ্রমিক অধিকার পরিষদ, গণসংহতি আন্দোলন ও রাষ্ট্রচিন্তা এ সমাবেশের আয়োজন করে।

সমাবেশে ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, সরকারের মন্ত্রীই বলছেন আমলারা কোটি কোটি টাকা পাচার করেছের। কিন্তু সরকার এই আমলাদের কিছু বলতে পারছে না। কারণ তাদের ওপর ভর করেই আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় টিকে আছে। আমলারা রাতে ভোট চুরি করে তাদের ক্ষমতায় এনেছে।

তিনি বলেন, পাচার চুরির কারণে এখন সরকারি তহবিল শূন্য। রাষ্ট্র চালাতে বাধ্য হয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে যাকে তাকে জরিমানা করে অর্থ সংগ্রহের চেষ্টা করছে।

গণস্বাস্থ্যের ট্রাস্টি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ছিল স্বাধীন সার্বভৌম ও বৈষম্যমূলক রাষ্ট্র। এই চেতনা থেকে দেশ এখন বহুদূরে। এককেন্দ্রিক সরকার কখনও মানুষের মুক্তি আনতে পারে না। জনগণের কাছে সরকারকে নিতে হবে। ঢাকার সরকারকে পতন ঘটিয়ে বহুকেন্দ্রিক সরকার করতে হবে। এর জন্য সংগ্রাম অব্যাহত রাখতে হবে।

সমাবেশে গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি বলেন, সরকার বাংলাদেশ ও জনগণের ভবিষ্যতকে বিপদের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে ক্ষমতায় ঠিকে আছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর বলেন, দেশকে সংঘাতের দিকে নিয়ে যাচ্ছে বর্তমান সরকার। সরকার দিল্লির দাসত্ব করে ক্ষমতায় আছে। তরুণরাই এই বাংলাদেশকে নতুন করে বিনির্মাণ করবে।

সমাবেশে আয়োজক চার সংগঠনের পক্ষ থেকে একটি যৌথ ঘোষণা পাঠ করা হয়। ঘোষণাপত্র পাঠ করেন ভাসানী অনুসারী পরিষদের মহাসচিব রাশিদুল ইসলাম।  এতে বলা হয়, চিন্তা ও বাক স্বাধীনতাসহ জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার হরণকারী সব ধরনের আইন বাতিল করতে হবে।

আরও বক্তব্য দেন রাষ্ট্রচিন্তার সদস্য দিদারুল ইসলাম ভূঁইয়া, বাংলাদেশ গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতির সভাপ্রধান তাসলিমা আক্তার, ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক রাশেদ খান, শ্রমিক অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক আবদুর রহমান প্রমুখ।

বিষয় : রাজনীতি

মন্তব্য করুন