বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ক্ষমতাসীন সরকার খুন-জখম-সন্ত্রাসের মাধ্যমে জঘন্য খেলায় মেতে উঠেছে। দেশের মানুষকে ভীত সন্ত্রস্ত রেখে আওয়ামী শাসনকে প্রলম্বিত করতে লাগাতার তারা এ অন্যায় করছে। ভয়াবহ দুঃশাসনকে আড়াল করার ঘৃণ্য অপকৌশলের অংশ হিসেবে ধারাবাহিকভাবে বিএনপিসহ বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর হামলা এবং খুন-জখমের নারকীয় বিভৎসতা চালিয়ে যাচ্ছে।

শনিবার এক বিবৃতিতে তিনি এ মন্তব্য করেন। গত বৃহস্পতিবার রাতে মাগুরা জেলা বিএনপি কার্যালয়ে আওয়ামী লীগ ও তাদের অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের অতর্কিত হামলা ভাঙচুর এবং জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক আহসান হাবীব কিশোরের বাসভবনে হামলাসহ পৌর যুবদল নেতা শান্তিকে কুপিয়ে আহত করার ঘটনায় তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ জানিয়ে তিনি এ বিবৃতি দেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলোর নির্বিঘ্নে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনার সুযোগ বা অধিকার কেড়ে নেওয়া হয়েছে। মাগুরা জেলা বিএনপি কার্যালয়সহ আহসান হাবীব কিশোরের বাসভবনে আওয়ামী সন্ত্রাসীদের নারকীয় তাণ্ডব এবং পৌর যুবদল নেতা শান্তিকে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করার ঘটনায় আবারও প্রমাণিত হলো দেশটাকে এখন নিরাপত্তাহীনতার অতল গহব্বরে নিমজ্জিত করা হয়েছে।

তিনি বলেন, বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলোর সবার অধিকার হরণের মাধ্যমে অসৎ উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের লক্ষ্যে দেশকে বিরোধী দলমুক্ত করে আওয়ামী একচ্ছত্র শাসন দীর্ঘমেয়াদে ভোগ করতেই বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর সন্ত্রাসীদের লেলিয়ে দেওয়া হয়েছে। শাসকগোষ্ঠীর প্রত্যক্ষ মদদ না থাকলে মাগুরা জেলা বিএনপি কার্যালয়ে হামলা ও যুবদল নেতাকে নির্মমভাবে কুপিয়ে আহত করার সাহস পেতো না সন্ত্রাসীরা।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ধারাবাহিকভাবে বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হামলা এবং এর লাগাম টেনে ধরতে সরকারের অনিচ্ছাই সন্ত্রাসীদের কার্যকলাপ অব্যাহত গতিতে চালিয়ে যেতে আরও উৎসাহিত করছে।

অপর এক বিবৃতিতে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর রাজধানীর মোগলটুলী এলাকায় ‘শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়’-এর নাম পরিবর্তন করার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

বিষয় : রাজনীতি বিএনপি মহাসচিব

মন্তব্য করুন