তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, সরকারের যুগপূর্তিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ ও মানুষের ভাগ্য উন্নয়নেরও এক যুগ পূর্ণ হচ্ছে। এ সময়ে সরকারের সবচেয়ে বড় সফলতা একদিকে যেমন দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি হয়েছে; অন্যদিকে প্রতিটি মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন হয়েছে। দারিদ্র্য কমেছে বহুলাংশে। বাংলাদেশে এখন ছেঁড়া কাপড় পরা ও খালি পায়ের মানুষ দেখা যায় না। কবিতায় কুঁড়েঘর আছে, বাস্তবে নেই। 

বুধবার বিকেলে সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তর থেকে প্রকাশিত 'সচিত্র বঙ্গবন্ধু' আলোকচিত্র অ্যালবামের মোড়ক উন্মোচনের সময় এসব কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী। বক্তব্য দেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান, চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক স. ম. গোলাম কিবরিয়া এবং পরিচালক ও অ্যালবামের সিনিয়র সম্পাদক মো. কামরুজ্জামান।

হাছান মাহমুদ বলেন, আগে বলতাম- ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত দেশ বিনির্মাণ করব। প্রধানমন্ত্রীর গতিশীল নেতৃত্বে ইতোমধ্যে ক্ষুধাকে জয় করে দেশ খাদ্যে প্রায় স্বয়ংসম্পূূর্ণ। স্বল্পোন্নত থেকে মধ্যম আয়ের দেশের পথে বাংলাদেশ। সব সূচকে অনেক আগেই পাকিস্তানকে এবং বেশ অনেক সূচকে ভারতকেও অতিক্রম করেছে দেশ।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছরেও বিএনপি স্বাধীনতাবিরোধীদের নিয়ে রাজনীতি করে। সে কারণেই স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি বাংলাদেশ থেকে নির্মূল হয়নি এবং সেটিই তাদের ব্যর্থতা।

তিনি বলেন, 'সচিত্র বঙ্গবন্ধু' অ্যালবামে অনেক দুর্লভ ছবি স্থান পেয়েছে। বাংলা ও ইংরেজি দুই ভাষাতেই ক্যাপশান দেওয়ায় বিদেশিরাও বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে জানতে পারবেন। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ ধারণের জন্য চলচ্চিত্র প্রকাশনা অধিদপ্তরের অবদান জাতির ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে।