বিএনপি নেতারা বলেছেন, ক্ষমতা চিরস্থায়ী করতে দেশের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে ভিনদেশিদের দাসত্ব গ্রহণ করেছে আওয়ামী লীগ। দেশকে আগের মতো তলাবিহীন ঝুড়ি বানানোর পাঁয়তারা করছে তারা। গণবিরোধী এই সরকার জনগণের বিরুদ্ধে, গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। দেশের গণতন্ত্রকামী ও দেশপ্রেমিক মানুষদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এ সরকারকে সরাতে হবে। মামলা-হুলিয়া দিয়ে গণতন্ত্রের এই আন্দোলন দমানো যাবে না।
গতকাল বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপি আয়োজিত মানববন্ধনে নেতারা এসব কথা বলেন। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়ের করা রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে এর আয়োজন করা হয়। সারাদেশে জেলা ও মহানগরে একযোগে এ কর্মসূচি পালন করে বিএনপি।
মানববন্ধনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আজকে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে যে মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে এবং গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে, তা নতুন কোনো ঘটনা নয়। দেশে গণতন্ত্র ধ্বংস করার জন্য সরকার ১২ বছর ধরে অত্যাচার-নিপীড়ন-নির্যাতনের স্টিমরোলার চালিয়ে যাচ্ছে। তবে দেশের ১৬ কোটি স্বাধীনতাকামী, গণতন্ত্রকামী মানুষ আজ ঐক্যবদ্ধ। মিথ্যা মামলা দিয়ে, হুলিয়া দিয়ে গণতন্ত্রের কোনো আন্দোলন দমন করা যাবে না।
করোনা ভ্যাকসিন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, করোনা মহামারিতেও সরকার লুটপাট বন্ধ করেনি। আরও লুটপাট করতে এখন ভ্যাকসিন আমদানির মধ্যে ষড়যন্ত্র করছে। যেখানে ভ্যাকসিন ভারতে বিক্রি করছে ২ দশমিক ৪০ ডলার করে, সেখানে আওয়ামী লীগ সরকার বিক্রি করবে ৫ ডলার করে। এই বাড়তি টাকা তারা লুটপাট করবে।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, একটি সমাবেশের মধ্য দিয়ে আত্মতৃপ্তি প্রকাশ করলে চলবে না। আমাদের কথার চেয়ে কাজ দরকার বেশি। জনগণ চায় আমরা রাস্তায় নামি। জনগণ আমাদের সঙ্গে নামবে।
দলের ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, দিন-তারিখ দেব না। তবে এই বছরের মধ্যে অনেক কিছুর পরিবর্তন হবে। তারেক রহমানও দেশে ফিরে আসবেন।
বিএনপি মহানগর দক্ষিণের সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে দলের ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক এজেডএম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, আবদুস সালাম, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, কেন্দ্রীয় নেতা সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, নাজিম উদ্দিন আলম, মীর সরাফত আলী সপু, আজিজুল বারী হেলাল, শিরিন সুলতানা, আবদুস সালাম আজাদ, শহিদুল ইসলাম, শামীমুর রহমান শামীম, মীর নেওয়াজ আলী নেওয়াজ, যুবদলের সাইফুল ইসলাম নিরব, সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবক দলের আবদুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল, ছাত্রদলের ফজলুর রহমান খোকন প্রমুখ বক্তব্য দেন।
ক্ষমতার মসনদ যে কোনো মুহূর্তে ধসে পড়বে- মির্জা ফখরুল :গতকাল পৃথক এক বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, জনগণের ক্ষমতা জনগণের কাছে ছেড়ে না দিলে সরকারের ক্ষমতার মসনদ যে কোনো মুহূর্তে ধসে পড়বে। নিজেদের দুর্নীতি-দুরাচারের সত্য কাহিনি এখন সরকারি দলের নেতাদের মুখ থেকেই বের হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, সরকারের পায়ের নিচের মাটি সরে গেছে বলেই তারা বিএনপির যে কোনো কর্মসূচিতেই আতঙ্কিত বোধ করছে। ক্ষমতার দাপটে বিএনপিকে ঠেকাতে এবং বিএনপির কর্মসূচি বানচাল করতে নেতাকর্মীদের পাইকারি হারে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে।
জয়পুরহাট জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অধ্যক্ষ শামছুল হক, সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আমিনুর রহমান বকুল, যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল ওহাবসহ দল ও অঙ্গ সংগঠনের ২৩ নেতাকর্মীকে গতকাল গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে মির্জা ফখরুল এ বিবৃতি দেন।
বরিশালে যৌথ সমাবেশ :বরিশাল ব্যুরো জানায়, নগরীর অশ্বিনী কুমার হলের সামনে উত্তর ও দক্ষিণ জেলা বিএনপি যৌথ সমাবেশ করেছে। এ সময় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও বরিশাল মহানগর বিএনপি সভাপতি অ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ার বলেন, দেশের মানুষকে নির্বাচনের বাইরে রেখে অবৈধ সরকার গণতন্ত্র রক্ষা করছে।
সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন বরিশাল মহানগর সিনিয়র সহসভাপতি মনিরুজ্জামান খান ফারুক, সৈয়দ আহসান কবির হাসান, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জিয়াউদ্দিন সিকদার জিয়া প্রমুখ।


বিষয় : বিএনপির মানববন্ধন

মন্তব্য করুন