২০১৯-২১ মেয়াদে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সংস্কৃতি বিষয়ক উপ-কমিটি গঠিত হয়েছে। নতুন এই উপকমিটির সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন উপস্থাপক ও নির্মাতা আনজাম মাসুদ। তবে রাজনীতিতে সক্রিয় হলেও শোবিজ ছাড়ছেন না বলেই জানালেন তিনি। বলেন, 'সাংস্কৃতিক অঙ্গনে দলের জন্য কাজ করতে চাই।'

দীর্ঘদিন ধরে রাজনীতির সঙ্গে জড়িত আনজাম মাসুদ। তবে মাঝে শোবিজে কাজের চাপ বেড়ে যাওয়ায় রাজনীতিতে সময় কম দেয়া হয়। এখন দুই জায়গাতেই সক্রিয়তা থাকবে বলে জানালেন এ উপস্থাপক। 

আনজাম মাসুদ বলেন, ‘এক সময় ছাত্রলীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক ছিলাম। ছাত্রাবস্থাতেই সাংস্কৃতিক অঙ্গনে উপস্থাপনা এবং ইভেন্টের কাজ নিয়েই ব্যস্ত হয়ে পড়ি। রাজনীতি নিয়ে আমার কোনো উচ্চাভিলাস নেই। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে কাজ করি। ভালোবাসা থেকে দল করি।' 

নতুন টিভি অনুষ্ঠান উপস্থাপনা প্রসঙ্গে আনজাম বলেন, ‘কয়েকটি অনুষ্ঠানের পরিকল্পনা করেছিলাম। কিন্তু করোনার প্রকোপে সব পিছিয়ে গেছে। এখন নতুন করে পরিকল্পনা করছি।'

আনজাম মাসুদ ইভেন্টের কাজ নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। এ ছাড়া স্বাধীনতা সাংস্কৃতিক পরিষদ ও প্রেজেন্টারস প্লাটফর্ম অব বাংলাদেশ নামে দুটি সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন। ১৯৯৬ সাল থেকে তিনি উপস্থাপক হিসেবে নিয়মিত কাজ করে যাচ্ছেন। বিটিভিতে ‘বিদ্যাঙ্গন’ নামের একটি অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করতেন। এরপর একই চ্যানেলে ‘আজকাল’ নামের একটি অনুষ্ঠানের উপস্থপনা করেন। পরে এটিএন বাঙলায় ‘এক দুই তিন’ এবং ‘আজ কাল পরশু’ অনুষ্ঠানের উপস্থাপনা করেন। বিটিভির টানা ছয়টি ঈদ ‘আনন্দ মেলা’ উপস্থাপনা করেন তিনি। 

দীর্ঘ সময় তিনি বিটিভিতে ‘পরির্বতন’ অনুষ্ঠানের পরিকল্পনা, গ্রন্থনা, উপস্থাপনা ও নির্দেশনা দেন। উপস্থাপনায় স্বীকৃতি স্বরূপ তিনি চারবার পেয়েছেন বাচসাস পুরস্কার’ পুরস্কার। এছাড়া পেয়েছেন বিসিআরএ, সিজেএফবি, বাবিসাস ও শেরেবাংলা স্বর্ণ পদক।