করোনাভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে সরকার ঘোষিত লকডাউনকালে শ্রমজীবী হতদরিদ্রদের খাদ্যনিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত এবং শ্রমিকদের ঝুঁকিভাতা দেওয়ার দাবি জানিয়েছে বামপন্থি দলগুলো। একইসঙ্গে অবিলম্বে সব নাগরিকের বিনামূল্যে করোনা পরীক্ষা ও টিকা নিশ্চিত করা এবং টিকা নিয়ে বাণিজ্য বন্ধের দাবি জানিয়েছেন দলগুলোর নেতারা।

শনিবার পৃথক বিবৃতিতে অব্যাহত গতিতে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধিতে গভীর উদ্বেগ জানিয়ে নেতারা বলেন, সরকারের আত্মসন্তুষ্টি ও অবহেলার কারণেই করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। বাম গণতান্ত্রিক জোটের কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদের এক বিবৃতিতে বলা হয়, সরকার সোমবার থেকে এক সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণা করলেও এজন্য পূর্বপ্রস্তুতি দেখা যাচ্ছে না। আর সরকারের এ ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই অসাধু ব্যবসায়ীরা বাজারে জিনিসপত্রের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন। বাজার নিয়ন্ত্রণ ও দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল রাখার দাবি জানান নেতারা।

বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেছেন বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়ক বজলুর রশীদ ফিরোজ, কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদের সদস্য মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, মোহাম্মদ শাহ আলম, খালেকুজ্জামান, সাইফুল হক, মুবিনুল হায়দার চৌধুরী, জোনায়েদ সাকি, মোশাররফ হোসেন নান্নু, মোশরেফা মিশু, ইকবাল কবির জাহিদ ও হামিদুল হক।

বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান বিবৃতিতে বলেন, লকডাউনের খবর টেলিভিশনে প্রচারের সঙ্গে সঙ্গেই বাজারে জিনিসপত্রের দাম লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়ে চলেছে। এমনিতেই গ্রাম-শহরের হতদরিদ্র মানুষ যারা দিন আনে দিন খায়, তাদের কাজ না থাকলে খাবার জোটে না। লকডাউনে ওই সব মানুষের অবস্থা চরম সংকটাপন্ন হয়ে পড়বে। গ্রাম-শহরের হতদরিদ্রদের জন্য লকডাউনকালে ঘরে ঘরে সরকারি উদ্যোগে খাদ্য পৌঁছে দেওয়া ও তাদের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে হবে।

বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক পৃথক বিবৃতিতে বর্তমান করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় ‘স্বাস্থ্যগত দুর্যোগ’ ঘোষণা করে করোনার পরীক্ষা ও চিকিৎসা জোরদার করতে জরুরি পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানান।

বাসদের (মার্কসবাদী) সাধারণ সম্পাদক মুবিনুল হায়দার চৌধুরী বিবৃতিতে করোনার অজুহাতে বাস ও লঞ্চসহ গণপরিবহনের ভাড়া এবং টিসিবির পণ্যের মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে বলেন, করোনার সময় ভারত ও যুক্তরাজ্যসহ বিভিন্ন দেশে ভর্তুকি দিতে দেখা গেছে। ফলে বর্তমান সময়ে করোনার অজুহাতে গণপরিবহনের ভাড়া ও টিসিবির পণ্যের মূল্য বৃদ্ধির সরকারি সিদ্ধান্ত অযৌক্তিক। ভর্তুকি মূল্যে খাদ্যপণ্যের রাষ্ট্রীয় বাণিজ্য চালু ও গ্রাম-শহরের গরিব মানুষের জন্য রেশন চালুর দাবি জানান তিনি।