সরকারের অব্যবস্থাপনায় মাঠপর্যায়ে লকডাউন কার্যকর হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। দলটি জানিয়েছে, লকডাউন নিয়ে সরকারের দ্বিধাগ্রস্ত সিদ্ধান্ত ও সমন্বয়হীনতায় জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তারাও দ্বিধাগ্রস্ত, যার ফলে মাঠপর্যায়ে লকডাউন বা নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হচ্ছে না। আবার সরকারের কোনো উদ্যোগও নেই।

বুধবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে দলের কেন্দ্রীয় দফতরের দায়িত্বে থাকা সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স এ অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, 'বাংলাদেশে করোনা সংক্রমণের হার বেড়েই যাচ্ছে। গত এক মাসে সংক্রমণের হার ২ শতাংশ থেকে ৯৬ শতাংশে গিয়ে দাঁড়িয়েছে। করোনা মোকাবিলায় সরকার হঠাৎ এক সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণা দেয়। এমনিতে সরকারের ভ্রান্তনীতির ফলে জনগণের আয়-রোজগার সংকুচিত হয়ে গেছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রবমূল্য আকাশচুম্বী। সর্বত্র লেজে-গোবরে অবস্থায় নানা দুর্ভোগে পড়েছে জনগণ।'

প্রিন্স আরও বলেন, 'করোনার দ্বিতীয় টেউ মোকাবিলায় গত বছরের মতোই সরকারের পদক্ষেপ সমন্বয়হীন, অপরিকল্পিত, অদূরদর্শী ও কাণ্ডজ্ঞানহীন। এবার সরকার অনেক সময় হাতে পেলেও পূর্বপ্রস্তুতি না থাকায় গতবারের মতোই হ-য-ব-র-ল অবস্থা বিরাজ করছে। করোনা আক্রান্ত রোগীরা চিকিৎসার জন্য এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে ছুটতে ছুটতে পথের মধ্যেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছেন। এর দায় সরকারকেই নিতে হবে।'

এ সময় হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যসেবা, আইসিইউ, ভেন্টিলেটর ও অক্সিজেন নিশ্চিত করা এবং সরকারি খরচে পর্যাপ্ত করোনা টেস্টের ব্যবস্থা করার দাবি জানান প্রিন্স।

ফরিদপুরের সালথায় গণবিক্ষোভের ঘটনায় মানুষ হত্যা ও চার হাজার জনকে আসামি করে মামলা দায়েরের ঘটনার নিন্দা জানিয়ে তিনি বলেন, 'আলাপ-আলোচনার পরিবর্তে গুলি করে লাশ ফেলে জনবিক্ষোভ দমন করতে চায় সরকার। এ ঘটনায় এটি পরিষ্কার যে, সরকারের পায়ের নীচে শেষ মাটিটুকুও আর অবশিষ্ট নেই।'

মঙ্গলবার নারায়ণগঞ্জের জেলা নেতা ইকবাল হোসেনকে তার বাসা থেকে র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া এবং চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় যুবদল নেতা বাবুল তালুকদার ও মো. মানিককে গ্রেপ্তারের ঘটনার নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে তাদের মুক্তির দাবিও জানান প্রিন্স।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, সহ-দফতর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু, কৃষক দলের শাহজাহান মিয়া সম্রাট, শ্রমিক দলের মনজরুল ইসলাম মঞ্জু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন