ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গাছ কেটে স্মৃতিকেন্দ্র নির্মাণের উদ্যোগে পরিবেশবাদীদের বিরোধিতার কঠোর সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, যখন জিয়াউর রহমান শিশু পার্ক তৈরি করে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের স্মৃতিচিহ্নগুলো মুছে ফেলেছিলেন, তখন কিন্তু এই পরিবেশবাদী বা বুদ্ধিজীবীরা এর বিরোধিতা বা প্রতিবাদ করেননি। তারা চুপ ছিলেন। এটি দুঃখজনক ও দুর্ভাগ্যজনক।

শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে ঈদ উপহারসামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে জাহাঙ্গীর কবির নানক এসব কথা বলেন। জাতীয় প্রেস ক্লাব কর্মচারী ইউনিয়ন এবং ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির কর্মচারীদের মধ্যে উপহারসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

নানক বলেন, ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও স্মৃতি প্রজন্মের পর প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার জন্যই এক বিশাল প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। গোটা উদ্যানে একটি ছোট্ট শিশু ঢুকলেও তার স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানতে পারবে।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এবং ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির চেয়ারম্যান এ কে এম রহমতুল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সাবেক সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল, সাবেক সভাপতি আবদুল জলিল ভূঁইয়া, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন, সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, কোষাধ্যক্ষ শাহেদ চৌধুরী, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক মসিউর রহমান খান প্রমুখ। পরিচালনা করেন আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক এবং উপকমিটির সদস্য সচিব সুজিত রায় নন্দী।

একই দিন রাজধানীর বনানীতে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে করোনায় বিপর্যস্ত এক হাজার পরিবারের মধ্যে বস্ত্র ও খাবার বিতরণ অনুষ্ঠানে জাহাঙ্গীর কবির নানক বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে রাজনীতি ও লুকোচুরি না করতে দলটির প্রতি আহ্বান জানান। ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমানের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম, ঢাকা মহানগর উত্তরের সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি প্রমুখ।

বিষয় : জাহাঙ্গীর কবির নানক জিয়া শিশু পার্ক বুদ্ধিজীবী

মন্তব্য করুন