বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক বলেছেন, সরকার নিজের ব্যর্থতা ঢাকতে রাজনৈতিক বৈরিতা ও বিরোধ বাড়িয়ে তুলছে। গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক সংস্কৃতি জোরদার করার বদলে ঘৃণার রাজনীতিকে জোরদার করে চলেছে। সরকারকে এসব আত্মঘাতী তৎপরতা থেকে সরে আসতে হবে।

শুক্রবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভায় সাইফুল হক এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, করোনা দুর্যোগ ও বিদ্যমান রাজনৈতিক সংকট উত্তরণে দরকার বিরোধী রাজনৈতিক দল ও জনগণকে আস্থায় নেওয়া। কিন্তু সরকার রাজনৈতিক বিদ্বেষ ও অসহিষুষ্ণতা আরও বাড়িয়ে তুলছে। রাজনৈতিক উত্তেজনা ছড়িয়ে দিচ্ছে। দেশ ও সরকার পরিচালনায় ধারাবাহিক ব্যর্থতা ও ভুল আড়াল করতেই সরকার এসব নেতিবাচক কৌশল অবলম্বন করছে কিনা, জনগণের মধ্যে সে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

অস্থিরতা পরিহার করে সবার মতামত বিবেচনায় নিয়ে করোনা সংকট উত্তরণে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যু এখনও আতঙ্কজনক পর্যায়ে। বিশ্নেষকরা করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কা করছেন। দারিদ্র্যসীমার নিচে এখনও ছয় কোটি মানুষ; স্বল্প আয়ের মানুষও মহাসংকটে। বাজারে আগুন, বেকারত্বের অবস্থা শোচনীয় এবং স্বাস্থ্য ও চিকিৎসাব্যবস্থা এখনও দুর্বল ও ভঙ্গুর। সেই সঙ্গে চলছে আমলাতান্ত্রিক স্বেচ্ছাচারিতা।

তিনি বলেন, এই পরিস্থিতি মোকাবিলায় দরকার সমন্বিত ও পরিকল্পিত জাতীয় উদ্যোগ। সব রাজনৈতিক দলসহ জনগণের প্রতিনিধিত্বকারী সমাজের সব অংশের মতামত গ্রহণ করাও প্রয়োজন। কিন্তু সরকার এর উল্টোপথে হাঁটছে।

বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির রাজনৈতিক পরিষদের সদস্য আনছার আলী দুলালের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য দেন দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বহ্নিশিখা জামালী, আকবর খান, আবু হাসান টিপু, রাশিদা বেগম, শহীদুল আলম নান্নু, এ্যাপোলো জামালী, ফিরোজ আহমেদ, সাইফুল ইসলাম, সজীব সরকার রতন, কেন্দ্রীয় সংগঠক শাহীন আলম, ফায়জুর রহমান মুনীর প্রমুখ।