নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, বর্তমান সরকারের দুঃশাসনে দেশের শিক্ষাব্যবস্থা ধ্বংস হয়েছে। সরকার জাতিকে অন্ধকারের দিকে ঠেলে দিয়েছে। তারা জাতিকে মেধাশূন্য করতে চায়। তাদের একমাত্র লক্ষ্য অবৈধ ক্ষমতা টিকিয়ে রাখা।

রোববার নাগরিক ছাত্রঐক্য আয়োজিত কর্মিসভায় তিনি এসব কথা বলেন। কুড়িগ্রামের একটি স্কুলের উদাহরণ টেনে মান্না বলেন, ওই বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ৯ জন ছাত্রীর মধ্যে আটজনেরই এই করোনাকালে বিয়ে হয়ে গেছে। দেড় বছর বিরতি শেষে বিদ্যালয় খোলার পর কেবল একজন ছাত্রী শ্রেণিকক্ষে ফিরেছে। এটা এখন সমগ্র বাংলাদেশের চিত্র।

তিনি বলেন, ভোট ডাকাত সরকার করোনা মোকাবিলায় নিজেদের সফল দাবি করে। অথচ পৃথিবীর কোনো দেশে এত দীর্ঘ সময় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল না। করোনায় দেশে নতুন করে আড়াই কোটি মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে চলে গেছে। একদিকে দারিদ্র্য, অন্যদিকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। এই দুইয়ের কারণে হাজার হাজার শিক্ষার্থী ঝরে পড়েছে। কিন্তু এ ব্যাপারে সরকারের কোনো ভ্রুক্ষেপ নেই।

মান্না বলেন, সরকার কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দিতে ভয় পায়। কারণ তারা জানে, সরকারের দুঃশাসনের বিরুদ্ধে ছাত্রসমাজ জেগে উঠলে অবৈধ গদি টিকিয়ে রাখা যাবে না। তিনি বলেন, করোনা মহামারি এবং সরকারের দুঃশাসন ও লুটপাটে দেশ এখন জর্জরিত। অর্থনীতি ধ্বংসের মুখে। দারিদ্র্যের হার হুহু করে বাড়ছে। অথচ এই সময় প্রধানমন্ত্রী জনগণের টাকায় প্রতি ঘণ্টায় ৪০ হাজার ডলার খরচ করে চার্টার্ড বিমানে আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে দেখা করতে যান।

নাগরিক ছাত্রঐক্যের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোশাররফ হোসেনের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য জিন্নুর চৌধুরী দিপু, আনিসুর রহমান খসরু, ডা. জাহেদ উর রহমান প্রমুখ।