দেশপ্রেম জাগ্রত করে গণআন্দোলন সৃষ্টির মাধ্যমে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে বিএনপির নেতাকর্মীদের আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে সার্বভৌমত্ব রক্ষা পরিষদের উদ্যোগে ‘সার্বভৌমত্ব ও গণতন্ত্র রক্ষা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এই মন্তব্য করেন।

এ অনুষ্ঠানে তিনি বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকারের হাত থেকে দেশের জনগণকে মুক্ত করতে স্বল্প সময়ের জন্য একটা মরণ কামড় দিতে হবে। 

তিনি বিএনপি নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেন, ‘সরকার হটাও আন্দোলন ‘ডু অর ডাই’ ‘এক দফা’ হতে হবে। আমি আগে থাকব, আপনারা আমার পিছনে থাকবেন- রাজনীতিতে সেই জায়গাটা আসতে হবে। আমরা দীর্ঘকাল যদি ভালো থাকতে চাই, দেশের জনগণকে মুক্ত করতে চাই তাহলে স্বল্প সময়ের জন্য একটা মরণ কামড় দিতে হবে।’

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘ডু অর ডাই- এক দফা। এর মাঝখানে কোনো কথাবার্তার প্রয়োজন নাই। ডু অর ডাই-পরিষ্কার কথা। দেশপ্রেম জাগ্রত করে গণআন্দোলন সৃষ্টির মাধ্যমে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে সকলকে প্রস্তুতি নিতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘হীরক রাজার দেশে- রশি ধরে মারো টান, রাজা হবে খান খান। এই পথেই আমাদের হাটতে হবে। এক দফার পথেই হাটতে হবে, মাঝ খানে অনেক কথা বলার দরকার নাই। এই পথেই গণতন্ত্রের মুক্তি, এই পথেই স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের মুক্তি, এই পথেই খালেদা জিয়ার মুক্তি, এই পথেই জনগণের মুক্তি, এই পথেই তারেক রহমানের নির্বিঘ্নে স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পরিবেশ তৈরি হবে।’

সরকারের উদ্দেশ্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য বলেন, ‘১২ বছর যাবত গণতন্ত্র ভ্যানেটি ব্যাগে রাখছেন- এটা খুলে দেন। অর্থাৎ নির্বাচনে আমি আসব তবে আমি সরকারে থাকব না। তাতে কিছু লোকের ইতিবাচক প্রশংসা পাবেন। সেটা ভোটে পাস করেন আর না করেন। ওই ইতিবাচক প্রশংসাটা হবে আগামী দিন আপনাকে এই বাংলাদেশে নিরাপদে রাজনীতি করার ক্ষেত্র।’

সংগঠনের সভাপতি ওসমানী গণির সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শরীফ হোসেনের পরিচালনায় আলোচনা সভায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বক্তব্য রাখেন।