আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন- কুমিল্লায় সাম্প্রদায়িক বিশৃঙ্খলায় যারা জড়িত, তাদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া হবে।

বুধবার সন্ধ্যায় রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে শারদীয় দুর্গাপূজার মহাঅষ্টমীর অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেছেন।

ওবায়দুল কাদের বলেছেন, কুমিল্লার ঘটনায় একটু ভয়-ভীতির আবহ সৃষ্টি হয়েছে। নির্বাচন সামনে রেখে সাম্প্রদায়িক অপশক্তি এমন ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারে। কুমিল্লায় যা হয়েছে, তা সাম্প্রদায়িক অপশক্তির কাজ। 

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, শেখ হাসিনার সরকার সংখ্যালঘুবান্ধব সরকার। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য নজির স্থাপন করেছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের উদ্দেশ করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন- ভয় পাবেন না। শেখ হাসিনার আমলে প্রতি বছর শান্তিপূর্ণ দুর্গোৎসব পালিত হচ্ছে- এটাই তাদের গাত্রদাহের কারণ।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সনাতন সমাজকল্যাণ সংঘের সাধারণ সম্পাদক স্বপন কুমার মজুমদার।

এর আগে সকালে ঢাকার যাত্রাবাড়ী-ডেমরা মহাসড়ক চার লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্প পরিদর্শন শেষে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সুষ্ঠু ভোট হলে পালানোর পথ খুঁজে পাবে না বিএনপি। নির্বাচনকে ভয় পায় বলেই বিএনপি প্রকাশ্যে নির্বাচনে অংশ নেয় না। নির্বাচন নিয়ে তাদের নীতি আত্মঘাতী, যা দলটির কর্মী-সমর্থক ও ভোটারদের সঙ্গে প্রবঞ্চনা ছাড়া কিছু নয়। এ হঠকারিতার মাশুল তারা এখন দিচ্ছে, ভবিষ্যতেও দিতে হবে।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, এই পলায়নপরতার রাজনীতি যারা করে, মুখোশের আড়ালে তারাই গণতন্ত্রের শত্রু। তারাই ভোটার ও ভোটাধিকারের শত্রু, উন্নয়নের শত্রু।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন নিয়ে যেসব অভিযোগ আসছে, সেগুলো যাচাই করা হচ্ছে। অভিযোগের সত্যতা প্রমাণ হলে প্রয়োজনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, যাত্রাবাড়ী-ডেমরা মহাসড়ক চার লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্পের অগ্রগতি এখন পর্যন্ত ৬০ ভাগ। এই সড়কের দৈর্ঘ্য পাঁচ কিলোমিটার। এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে রাস্তার দু'পাশে সার্ভিস লেন করা হচ্ছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ডেমরা থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম মাসুদ, যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনর রশীদ মুন্না, ৪৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবুল কালাম অনুসহ স্থানীয় নেতারা।