ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

এ ঘটনার ছবি ও উপস্থিতির নাম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়াকে কেন্দ্র করে ছাত্রদলের দু'পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এতে ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মইন আহমেদ ও ছাত্রলীগ কর্মী মো. মনির আহত হন।

শনিবার এই ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে,  শুক্রবার উপজেলার পশ্চিমপাড়ার মসজিদে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রোগমুক্তির জন্য দোয়ার আয়োজন করা হয়। ওই দিন রাতেই মিলাদের ছবিসহ উপস্থিত কয়েকজন নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মইন আহমেদ। স্ট্যাটাসে উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল আল মামুনের উপস্থিতির কথা উল্লেখ করা হয়। এ নিয়ে ফেসবুকে তাদের মধ্যে তর্ক হয়। পরদিন শনিবার সকালে উপজেলার সোনালী ব্যাংকের সামনে মইনকে পিটিয়ে আহত করে মামুন। 

এ ঘটনা মইনের বাড়ি বুড়িশ্বর গ্রামে ছড়িয়ে পড়লে মইনের পক্ষের লোকজন উপজেলা সদরে এসে মহড়া দেয়। ওই সময় মামুনের বাড়ির পাশের ছাত্রলীগ কর্মী মনিরকে মারধর করা হয়। স্থানীয়রা মনিরকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল আল মামুনের দাবি, তিনি বিএনপির মিলাদে যায়নি। মসজিদে নামাজ আদায়ের ছবি দিয়ে মইন তার নাম উল্লেখ করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়।

এদিকে, ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মইন অসুস্থ থাকায় তার সঙ্গে কথা বলা যায়নি।

নাসিরনগর সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক তমাল মিঞা বলেন, মনির কলেজ ছাত্রলীগের সক্রিয় সদস্য। তিনি ছাত্রদলের দু'গ্রুপের মারামারির সঙ্গে জড়তি নন। তারপরও তাকে কেন মারধর করা হলো, সে বিসয়ে আইনগত পদক্ষেপ নেবেন তারা।

এ ঘটনায় নাসিরনগর উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ন আহ্বায়ক পনি চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এখন পর্যন্ত এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়নি। 

নাসিরনগর থানার ওসি মো. হাবিবুল্লাহ সরকার পনিকে গ্রেপ্তারের কথা নিশ্চিত করেন। তিনি আরও জানান, উপজেলা সদরে পুলিশ নজরদারি রাখছে।