আবার সরগরম হয়ে উঠেছে দক্ষিণের ইলিশের মোকামগুলো। সোমবার রাত ১২টায় নিষেধাজ্ঞা শেষ হলেও মঙ্গলবার সকালেই বরিশাল নগরীর পোর্ট রোড মোকামে শত শত মণ ইলিশের আমদানি হয়। ক্রেতা ছিল অনেক। আমদানি বেশি হওয়ায় পাইকারি বাজারে দাম ছিল তুলনামূলক কম। 

নগরীর অলিগলিতে ইলিশ বিক্রেতাদের হাঁকডাক শোনা গেছে।

মঙ্গলবার সকালে পোর্ট রোড মোকামে গিয়ে দেখা যায়, প্রচুর ইলিশের আমদানির সঙ্গে ক্রেতা-বিক্রেতাদের আগমনে সরগরম মোকাম। দীর্ঘদিন বেকার থাকা শ্রমিকরা সাজি বোঝাই ইলিশ নিয়ে ছোটাছুটি করছে। ঘাটে ভেড়ানো সারি সারি ট্রলার থেকে নামছে ইলিশ। সেগুলো পাইকারি বিক্রির জন্য উচ্চস্বরে দাম হাঁকানো হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা জানান, ভোর ৬টা থেকে সেখানে ইলিশের ট্রলার আসা শুরু হয়। এদিন ক্রেতায় যেন ঠাসা ছিল বাজার।

ইলিশের আড়তদার মিজানুর রহমান জানান, গতকাল দুপুরের মধ্যে মোকামে প্রায় ২ হাজার মণ ইলিশ এসেছে। দর ছিল এলসি সাইজ (৬শ থেকে ৯শ গ্রাম) মণপ্রতি ২৮ হাজার টাকা, এক কেজি সাইজের ইলিশের মণ ৩৩ হাজার টাকা, এক কেজির ওপরে ৪০ হাজার টাকা এবং ৫০০ গ্রামের নিচের সাইজ ২৪ হাজার টাকা।

বরিশাল মৎস্য অধিদপ্তরের মৎস্য কর্মকর্তা (ইলিশ) ড. বিমল চন্দ্র দাস বলেন, পোর্ট রোড মোকামে প্রথম দিনেই ২ হাজার মণের বেশি ইলিশ বেচাকেনা হয়। তিনি বলেন, বেশিরভাগ মাছ ডিম ছেড়েছে। নিষেধাজ্ঞা শেষের ১২ ঘণ্টার মধ্যেই এত ইলিশ কীভাবে এলো- জানতে চাইলে তিনি বলেন, নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার পরপরই শত শত জেলে মেঘনাসহ বরিশালের বিভিন্ন নদনদীতে ইলিশ শিকারে ঝাঁপিয়ে পড়ে।

তবে মোকামের একাধিক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ও ট্রলারের মাঝিদের তথ্যমতে, নিষেধাজ্ঞার মধ্যেই সোমবার কিংবা তার আগে ধরা ইলিশবোঝাই ট্রলার কীর্তনখোলার আশপাশের শাখা নদীতে এনে রাখা হয়। সেগুলোই ভোরে নগরীর পোর্ট রোড মোকামে এসেছে। মোকাম ঘুরে দেখা গেছে, ডিম-ছাড়া ইলিশ লম্বা হয়ে গেছে। আবার পেটভর্তি ডিমওয়ালা মাছও রয়েছে।

দেশের অন্যতম বৃহত্তম ইলিশ মোকাম বরগুনার পাথরঘাটা সরকারি মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের বিপণন কর্মকর্তা বিপ্লব সরকার জানান, নিষেধাজ্ঞার পর মঙ্গলবার শুধু বিষখালী-বলেশ্বরের ইলিশ এসেছে মোকামে। সাগরের ইলিশ না এলেও প্রথম দিনই প্রায় ২ হাজার মণ ইলিশের আমদানি হয়েছে পাথরঘাটা মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে। দীর্ঘ ২২ দিন পর আবার সরব হয়ে উঠেছে পাথরঘাটা মৎস্য মোকাম। তিনি বলেন, প্রথম দিন আমদানি ভালো হওয়ায় দামও কম ছিল।

পটুয়াখালীর মহিপুর মৎস্য বন্দরের আড়তদার সমিতির সভাপতি দিদারউদ্দিন মাসুম সমকালকে বলেন, মহিপুরে মঙ্গলবার এসেছে শুধু খুটা জেলেদের ইলিশ। সাগরের ইলিশ আসতে আরও ২-৪ দিন লাগবে। তবে খুটা জেলেরা প্রথম দিনই প্রায় দেড় হাজার মণ ইলিশ নিয়ে এসেছে মোকামে।

প্রজনন নিরাপদ করতে গত ৪ অক্টোবর থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত ইলিশ শিকারে ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা সোমবার মধ্যরাতে শেষ হয়।