আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নির্বাচন সামনে রেখে দেশে আবারও আগুন সন্ত্রাসের পরিকল্পনা করা হচ্ছে। সাম্প্রদায়িক শক্তি আবারও হামলা ও পেট্রোল বোমা সন্ত্রাসের ষড়যন্ত্র করছে। এই সাম্প্রদায়িক শক্তির নির্ভরযোগ্য পৃষ্ঠপোষক বিএনপি। আন্দোলন ও নির্বাচনে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি সাম্প্রদায়িক হামলা শুরু করেছে।

বুধবার রাজধানীর সোনারগাঁ হোটেলের বলরুমে আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য উপ-কমিটি আয়োজিত 'করোনাকালীন শিল্প ও বাণিজ্য উন্নয়নে শেখ হাসিনার ভূমিকা' শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেছেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ১৩ বছর ধরে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় রয়েছে। ১২ বছর দুর্গাপূজায় কোনো সাম্প্রদায়িক হামলা হলো না, অথচ ১৩তম বছরে এসে হামলা হলো। আগামী নির্বাচন সামনে রেখে এই হামলা হয়েছে। নির্বাচন সামনে রেখে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ছড়ানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। এই চক্রের প্রধান পৃষ্ঠপোষক বিএনপি। বিএনপি এদের ছাতা দিয়ে যাচ্ছে। যারা পূজামণ্ডপ ও হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলা করেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের ব্যাপারে কঠোর অবস্থানে। এদের বিচার হবেই, দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হবে। এক্ষেত্রে কোনো ছাড় নেই।

তিনি বলেন, প্রতিবেশী দেশ ভারতে আমাদের চেয়ে মুসলমান অনেক বেশি, ২০ কোটির মতো। আর আমাদের এখানে হিন্দু এক কোটির মতো। এখানে যদি এক কোটি মানুষকে ঝুঁকির মুখে ফেলে দিই, ওখানে ২০ কোটি মানুষ ঝুঁকির মধ্যে পড়ে যাবে। এ কথাটা সবাইকে ভাবতে হবে।

ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ব্যবসায়ীদের রাজনীতি করা দোষের মনে করি না। কিন্তু রাজনীতিকে ব্যবসার হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা, এটাকে ঘৃণা করি। রাজনীতিকে ব্যবসায় ব্যবহার করলে রাজনীতি থাকে না, ব্যবসাও থাকে না। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছে। এই উন্নয়নের বিরুদ্ধে দেশে-বিদেশে অনেক ষড়যন্ত্র হচ্ছে। ব্যবসা-বাণিজ্য করতে হলে এই ষড়যন্ত্র ও এই সাম্প্রদায়িক শক্তিকে রুখতে হবে। তা না হলে ব্যবসা করতে পারবেন না। এজন্য ব্যবসায়ীদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। সাম্প্রদায়িক শক্তি দেশের শত্রু, জাতির শত্রু।

উন্নয়ন ও মেগা প্রকল্পগুলোর অগ্রগতি এবং করোনা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেওয়া পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে সেতুমন্ত্রী বলেন, জীবন ও জীবিকার মধ্যে ভারসাম্য বজায় রেখে জীবনের চাকাকে প্রধানমন্ত্রী সচল রেখেছেন। তিনি শুধু বাংলাদেশে নন, বিশ্বের কাছে নন্দিত। আগামী জুন মাসের মধ্যে পদ্মা সেতু দিয়ে যানবাহন চলাচল উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী। আগামী বছর মোট চারটি মেগা প্রকল্প আমরা উপহার দেব। বাংলাদেশের মানুষ যাতে নিশ্চিন্তে ঘুমাতে পারে, সেজন্য শেখ হাসিনা জেগে থাকেন। নিউইর্য়ক টাইমস পত্রিকা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে বলছে, বাংলাদেশের উন্নয়নের দিকে তাকাও।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য এবং শিল্প ও বাণিজ্য উপকমিটির চেয়ারম্যান কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে সভায় সূচনা বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্যবিষয়ক সম্পাদক এবং উপকমিটির সদস্য সচিব সিদ্দিকুর রহমান। এ ছাড়া বক্তব্য দেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, এফবিসিসিআইর সভাপতি জসিম উদ্দিন, ডিসিসিআইর সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম প্রমুখ।