বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, ‘বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে নির্বাচন ও সংলাপ কোনটাতেই বিএনপি যাবে না। কারণ আমরা বিগত দিনে আলোচনাও করেছি, নির্বাচনে অংশগ্রহণও করেছি। তার ফলাফল বাংলাদেশের মানুষ পেয়েছে। বিশ্ববাসীর কাছে এটা পরিস্কার দিনের আলোর মতো।’

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘অন্তরে মম শহীদ জিয়া’ নামক একটি সংগঠনের উদ্যোগে ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ঐতিহ্য ও বর্তমান বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

আমীর খসরু বলেন, ‘আমাদের বক্তব্য স্পষ্ট, একমাত্র নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে আলোচনা শুরু হতে পারে। যখন বাংলাদেশে নিরপেক্ষ সরকার দায়িত্ব নেবে তখন আলোচনা হতে পারে কিভাবে বাংলাদেশে নির্বাচন হবে, নির্বাচন কমিশন কিভাবে হবে এবং অন্যান্য সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলো যেগুলো নির্বাচনের সঙ্গে জড়িত তাদের কার্যক্রম কিভাবে আগামী দিনে হবে। তার আগে আলোচনা কোনো সুযোগ নেই।’

তিনি বলেন, ‘এই অনির্বাচিত সরকারকে আমাদের বিদায় করে একতাবদ্ধ হয়ে একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে। যে আন্দোলনের ডাক বিএনপি দিয়েছে সেই আন্দোলনকে সফল করার জন্য সকলকে প্রস্তুতি নিতে হবে।’

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের পেছনে আওয়ামী লীগই দায়ী অভিযোগ করে আমীর খসরু বলেন, ‘এই সাম্প্রদায়িক সমস্যা সৃষ্টির পেছনে মূলত যে দলটি কাজ করছে সেটা হচ্ছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। এটা দিনের আলোর মতো পরিস্কার। যারা এই ঘটনার শিকার তারা বলেছেন। এখানে এমপির কথা বলেছেন, এখানে মেয়রের কথা বলেছেন, এখানে ছাত্রলীগের কথা বলেছেন, তাদের সমর্থকদের কথা বলেছেন।’

খসরু বলেন, ‘গত ৯ বছরে তিন হাজারের উপরে হিন্দু সম্প্রদায় ও অন্যান্য সম্প্রদায়ের ওপর আক্রমণ হয়েছে। কোনোটার বিচার হয়নি। সরকার মানুষের ধর্ম-কর্ম করার অধিকার কেড়ে নিয়েছে। মানুষের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়েছে, দেশের মানুষের আইনের শাসন কেড়ে নিয়েছে, বাক স্বাধীনতা কেড়ে নিয়েছে, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা কেড়ে নিয়েছে, দেশের মানুষের সর্বস্তরের অধিকার কেড়ে নিয়েছে। এখন জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সকলে একতাবদ্ধ হয়ে এই সরকারকে সরিয়ে দিতে হবে। এ ছাড়া আর কোনো বিকল্প নাই।’

সংগঠনের উপদেষ্টা ঢালী আমিনুল ইসলাম রিপনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জহির উদ্দিন রাসেলের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি আহ্বায়ক আবদুস সালাম, কেন্দ্রীয় নেতা আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, খোন্দকার আব্দুল হামিদ ডাবলু প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।