বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, সরকারের নির্দেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও সরকার দলীয় সন্ত্রাসীরা বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির ওপর নির্দয় হামলা এবং নেতাকর্মীদের অন্যায়ভাবে গ্রেপ্তার ও মিথ্যা মামলা দিয়ে নাজেহাল করছে। অন্যদিকে খালেদা জিয়ার জীবন নিয়ে গভীর চক্রান্তে মেতে উঠেছে। তিনি যাতে সুস্থ হতে না পারেন, সেজন্যই বিদেশে উন্নত চিকিৎসার বিষয়ে গড়িমসি করছে। সরকারের এসব উদ্দেশ্য রহস্যজনক। খালেদা জিয়াকে ধ্বংস করতে এক বিষাক্ত নীলনকশা বাস্তবায়ন করছে সরকার।

মঙ্গলবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

রিজভী বলেন, কর্তৃত্ববাদী ক্ষমতাসীনরা মানবতা, বিবেক ও সহমর্মিতার ধার ধারে না। নিজেদের ক্ষমতাকে নিষ্কণ্টক করার জন্য ক্রুর জিঘাংসায় ভয়ানক সিদ্ধান্ত নিতে তারা পিছপা হয় না। পথের কাঁটা সরাতে তারা সব উদ্যোগ গ্রহণ করেছে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে ভেঙে ফেলে। আইনি প্রক্রিয়া, বিচার বিভাগ, প্রশাসন, নির্বাচন কমিশন, গণমাধ্যম তথা গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করার জন্য যেসব প্রতিষ্ঠান কাজ করে, তা ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। এই প্রতিষ্ঠানগুলোর স্বাধীনতা হরণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, গুরুতর অসুস্থ খালেদা জিয়ার মৌলিক মানবাধিকার নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে সরকার। তাদের কাছে এটাই স্বাভাবিক। তবে খালেদা জিয়ার কিছু হলে দেশের কোটি কোটি জনতা হাত গুটিয়ে বসে থাকবে না। আমরা আবারও আহবান জানাচ্ছি, অবিলম্বে খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বিদেশ পাঠাতে উদ্যোগ গ্রহণ করুন।

এসময় তিনি কেন্দ্র ঘোষিত ঢাকাসহ দেশব্যাপী কর্মসূচিতে পুলিশের হামলায় শতাধিক নেতাকর্মী আহত এবং প্রায় অর্ধশতাধিক নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তারের ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।