জামালপুরের মাদারগঞ্জ উপজেলার গুনারীতলা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মোস্তাাফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে তথ্য গোপনের অভিযোগ উঠেছে। ঋণের দায় থেকে অব্যাহতি পেতে মোস্তাাফিজুর রহমান আদালতে কাগজে-কলমে নিজেকে মৃত দেখিয়েছেন।

জানা গেছে, মাদারগঞ্জের গুনারীতলা ইউনিয়নের আবু শোয়েব নামে একজন ভোটার বৃহস্পতিবার জামালপুর জেলা নির্বাচন অফিসার বরাবর চেয়ারম্যান প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, চেয়ারম্যান প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান ফাতেমা আফসার এগ্রো কমপ্লেক্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। তিনি বাংলাদেশ ব্যাংকের এক্যুইটি অ্যান্ড এন্টারপ্রিনিউরশিপ ফান্ড (ইইএফ) ইউনিট-ইইএফ-এর সহায়তায় ১ কোটি ২ লাখ ২১ হাজার টাকা ঋণ নেন। পরবর্তী সময়ে ঋণ পরিশোধ না করায় তিনি খেলাপি হন। খেলাপি ও ব্যাংকের অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় মোস্তাফিজুর রহমানসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে ঢাকার পঞ্চম যুগ্ম জেলা জজ আদালতে মামলা হয়। মামলা ও ঋণ থেকে মুক্তি পেতে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কর্মকর্তার সহায়তায় মোস্তাফিজুর রহমান মারা গেছেন মর্মে আদালতে মৃত্যুর সনদও দাখিল করা হয়। 

অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়, মোস্তাফিজুর রহমান ঋণ খেলাপি ও মামলার তথ্য গোপন করা সত্ত্বেও গত ২৯ নভেম্বর যাচাই-বাছাইয়ে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উত্থাপন না করায় তিনি বৈধ প্রার্থী ঘোষিত হন।

এ ব্যাপারে মোস্তাফিজুর রহমানের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি নিজেকে মোস্তাফিজুর রহমান সাজু বলে দাবি করে তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করেন।

এ ব্যাপারে জামালপুর জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা বলেন, বিষয়টি নিয়ে আপিল হয়েছে। কোনো প্রার্থী প্রতারণার আশ্রয় নিলে তার বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।