গণ-অধিকার পরিষদের সদস্য সচিব নুরুল হক নুর বলেছেন, দেশ আজ চরম সঙ্কটের মধ্যে আছে। দেশের মানুষ দুঃসহ যন্ত্রণায় দিন কাটাচ্ছে। তাই আগামীতে সুষ্ঠু নির্বাচন দিয়ে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে জনগণের পাশে দাঁড়াতে হবে। বিশেষ করে বিচার বিভাগ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আমরা জনগণের পাশে দাঁড়ানোর অনুরোধ করবো।

নিরাপদ সড়ক, গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া ও জ্বালানি তেলের বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহারের দাবিতে শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে গণ-অধিকার পরিষদ আয়োজিত সামবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

নুরুল হক নুর বলেন, আমাদের ওপর হামলা-মামলা করে থামিয়ে দিতে পারবেন না। আমরা মৃত্যুকে আলিঙ্গন করতে রাজপথে নেমেছি। জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে প্রয়োজনে জীবন দেব।

তিনি বলেন, ঢাকা থেকে শুরু করে সারা দেশে ছাত্রদের হাফ ভাড়া কার্যকর করতে হবে, তেলের বর্ধিত দাম কমাতে হবে। ছাত্র আন্দোলনের একজন নেতাকর্মীকেও হয়রানি করা যাবে না। যদি হয়রানি কিংবা মামলা দেওয়া হয় তবে আমরা রাজপথে এসে জবাব দেব। সরকার ভাবছে- শুধু বক্তব্যই দিয়ে যাচ্ছি, কিন্তু আপনারা আমলে নিচ্ছেন না। কীভাবে আমলে নিতে হয় তা আমাদের জানা আছে।

ডাকসুর সাবেক এই ভিপি বলেন, রামপুরায় এক ছাত্র নিহতের ঘটনায় বিক্ষুব্ধ আমজনতা কয়েকটি বাসে আগুন দিয়েছে। কারা করেছে সেটা তদন্ত সাপেক্ষে বেরিয়ে আসতে পারে। কিন্তু তার আগেই বিরোধী দলের ওপর দায় চাপিয়ে দেয় সরকার।

তিনি বলেন, ইউপি নির্বাচনে কী সহিংসতাই না ঘটেছে। ইউপি নির্বাচনে প্রায় শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছে এবং হাজারো মানুষ আহত হয়েছেন। তারপরও নির্বাচন কমিশনার বলছে, সহিংসতাবিহীন নির্বাচনের নিশ্চয়তা দিতে পারবে না কমিশন।

সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন গণ-অধিকার পরিষদের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম-আহ্বায়ক রাশেদ খান, যুগ্ম-আহ্বায়ক ফারুখ হোসেন, শাকিল উজ্জজামান, সাদ্দাম হোসেন, আবু হানিফ, যুগ্ম সদস্য সচিব মশিউর রহমান, ছাত্র অধিকার পরিষদের সভাপতি বিন ইয়ামিন মোল্লা প্রমুখ।