তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী পদ থেকে পদত্যাগ করা ডা. মুরাদ হাসানের সমালোচনা করে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের-জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব বলেছেন, তার আচরণ কোনো একক ব্যক্তির নয়, এটা রাজনৈতিক, সামাজিক, নৈতিক অবক্ষয়ের ভয়ঙ্কর প্রতিচ্ছবি।

বুধবার এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, 'একজন সাংবিধানিক পদাধিকারীর যে নৈতিক স্খলনের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে, মানুষের মর্যাদা বিনষ্ট করার প্রশ্নে যে কুরুচিপূর্ণ মানসিকতার প্রতিফলন ঘটেছে, রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা অপব্যবহারের যে দম্ভ প্রকাশিত হয়েছে তা আমাদের রাজনৈতিক, সামাজিক ও নৈতিক অবক্ষয়ের ভয়ঙ্কর প্রতিচ্ছবি।' 

আ স ম রব আরও বলেন, 'রাজনীতিকে যে কোনো উপায়ে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা কুক্ষিগত এবং অর্থ উপার্জনের একমাত্র মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করতে গিয়ে জাতীয় জীবন থেকে নীতি-নৈতিকতা, ভব্যতা-শিষ্টাচার, পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ ও মর্যাদাকে বিদায় এবং সাংবিধানিক চেতনাকে কবর দেওয়া হয়েছে।'

তিনি বলেন, 'গত ৫০ বছরে ক্ষমতা দখলের অসুস্থ প্রতিযোগিতায় অহর্নিশ লিপ্ত থাকায় জাতি হিসেবে বিকশিত হওয়ার জন্য রাষ্ট্রের শীর্ষ পর্যায় থেকে জনগণকে কোনো দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়নি। রাষ্ট্রের উচ্চপর্যায়ের এই নৈতিক অবক্ষয় প্রকাশিত হওয়ার পরও আমাদের কোনো আত্মোপলব্ধি নেই, পর্যালোচনা নেই, আত্মসমীক্ষা নেই।'

আ স ম রব আরও বলেন, 'দুই বছর আগের একটি অডিও ফাঁস না হলে হয়তো প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের নৈতিক জগৎ প্রশ্নবিদ্ধ হতো না, বরং অনুকম্পা পেতো। তার রাজনৈতিক পরিচয়ের কারণে অনেক তথাকথিত সংগ্রামী নারী নেতৃত্ব নীরবতার আশ্রয় নিয়েছেন, অনেক রাজনৈতিক দল ও সাংস্কৃতিক সংগঠন মৌনতা অবলম্বন করে প্রতিবাদ থেকে বিরত থেকেছেন, এটা আমাদের আত্মঘাতী দৈন্য মানসিকতার জ্বলন্ত নিদর্শন।'