দ্রব্যমূল্য বাড়াতে বিএনপি অসাধু ব্যবসায়ীদের ‘বাতাস দিচ্ছে’ বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য-সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। 

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘দ্রব্যমূল্যের বিষয়ে মাঠে কর্মসূচি দিয়েছে বিএনপি। পণ্যের মূল্য বাড়াতে অসাধু ব্যবসায়ীদের বাতাস দিচ্ছে তারা, দেশে যাতে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে। যে সমস্ত অসাধু ব্যবসায়ী পণ্যমূল্য বাড়িয়ে যেমন দেশবিরোধী কাজ করছে, তেমনি বিএনপিও দেশবিরোধী কাজ করছে।’ 

দেশে খাদ্য পণ্যের ‘কোনো সংকট নেই’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘যারা কৃত্রিম খাদ্য পণ্যের সঙ্কট তৈরি করার চেষ্টা করবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রামে একুশের বইমেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। নগরের এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের জিমনেসিয়াম চত্বরে এ বইমেলার আয়োজন করা হয়।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বিএনপি আসন্ন রমজানকে সামনে রেখে অসাধু ব্যবসায়ীদের পরামর্শ দিচ্ছে পণ্যের মূল্য বাড়ানোর জন্য। আমরা নজর রাখছি। সরকার কিন্তু এই অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।’ 

তিনি বলেন, ‘দ্রব্যমূল্য নিয়ে মাঠে নেমেছে বিএনপি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও খাদ্যপণ্যের মূল্য বেড়েছে। বাংলাদেশে কিন্তু কয়েকটি পণ্যের মূল্য বেড়েছে, তবে ইউরোপের চেয়ে অনেক কম বেড়েছে। কয়েকটি পণ্যের মূল্য বেড়েছে যেগুলো আমদানিনির্ভর। সেগুলো নিয়ন্ত্রণ করার জন্য আমাদের সরকার নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। ’

বিএনপির সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বিএনপি নেতারা বলছেন সরকারের বিদায় ঘণ্টা বেজে গেছে। নয়া পল্টনের অফিসে বসে গত ১৩ বছর ধরেই বিদায় ঘণ্টা বাজাচ্ছেন তারা। কিন্তু তাদের ঘণ্টায় মানুষ সাড়া দেয় নাই। ১৩ বছর ধরেই এই বিদায় ঘণ্টার মধ্যেই আছি আমরা। আরো কত বছর তাদের এই বিদায় ঘণ্টা বাজাতে হয় সেটি জনগণ ঠিক করবে। তাদের ঘণ্টা বাজানোর মধ্যেই আগামী নির্বাচনে জনগণ আওয়ামী লীগকে দেশ পরিচালনার দায়িত্ব দেবে।’

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে বইমেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. মমিনুর রহমান। স্বাগত বক্তব্য দেন বই মেলা উদযাপন পরিষদের আহবায়ক কাউন্সিলর ড. নিছার উদ্দিন আহমদ। 

সমাপনী অনুষ্ঠান হলেও বইমেলা চলবে আরও দুইদিন। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি শুরু হওয়া বইমেলা ১০ মার্চ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও প্রকাশকদের অনুরোধে আরও দুইদিন বাড়ানো হয়েছে।