ঢাকা মহানগরের ডেমরা সাব রেজিস্ট্রি অফিসে জমি দলিলে সরকারের নির্ধারিত ফি'র বাইরে প্রতি লাখে ৫০০ টাকা হারে ঘুষ নেওয়া হচ্ছে। অফিসের সাব রেজিস্ট্রারের নির্দেশে দলিল লেখকরা ওই হারে ঘুষ আদায় করছেন।রোববার দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) এনফোর্সমেন্ট টিমের অভিযানে এই তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

ডেমরা সাব রেজিস্ট্রার অফিসে জমি দলিলে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে দুদকের প্রধান কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম ভূঁইয়া ও মোহাম্মদ নুর আলম সিদ্দিকীর সমন্বয়ে গঠিত টিম রোববার সেখানে অভিযান চালায়।

টিমের সদস্যরা ছদ্মবেশে সেখানে যান এবং কয়েকজন দলিল লেখকের সঙ্গে কথা বলেন। তাতে জানা যায়, প্রতিটি দলিল সম্পাদনের ক্ষেত্রে সরকার নির্ধারিত ফি'র বাইরে প্রতি লাখ টাকায় ৫০০ টাকা করে সাব রেজিস্ট্ররের নামে আদায় করা হয়। 

জমি দলিল করতে আসা অনেকের সঙ্গে টিমের সদস্যরা কথা বললে তারা জানান, সরকার নির্ধারিত ফি'র বাইরে অতিরিক্ত টাকা না দিলে তাদের হয়রানির শিকার হতে হয়।

সেবাগ্রহীতাদের হয়রানি বন্ধে এনফোর্সমেন্ট টিম তাৎক্ষণিক সাব রেজিস্ট্রারকে মৌখিকভাবে সতর্ক করে। তবে অভিযানে পাওয়া তথ্য পর্যালোচনা করে এ ব্যাপারে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হবে বলে টিমের পক্ষ থেকে জানানা হয়েছে।

আরও একটি অভিযান

একই দিনে আরও একটি এনফোর্সমেন্ট টিমের অভিযানে লক্ষ্মীপুর জেলার রামগতির সাব রেজিস্ট্রার আবদুর রহমান মুহাম্মদ তামিমের বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার সত্যতা পাওয়া যায়।

টিমের সদস্যরা এই সাব রেজিস্ট্রারের অফিসে বিভিন্ন দলিল লেখক ও সেবাগ্রহীতার সঙ্গে কথা বলে জানতে পারেন, সাব-রেজিস্ট্রার আবদুর হমান মুহাম্মদ তামিম কর্তৃক দলিল দাতা-গ্রহীতারা প্রতিনিয়ত হয়রানির শিকার হচ্ছেন।

টিমের সদস্যরা এই অভিযোগ সম্পর্কে আরও তথ্য ও রেকর্ডপত্র সংগ্রহ করে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করার সুপারিশ করে কমিশনে প্রতিবেদন পেশ করবেন। দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় নোয়াখালী উপসহকারী পরিচালক আরিফ আহম্মদের নেতৃত্বে এই অভিযান চালানো হয়।