উজবেকিস্তানের কারাকালপাকস্তানে অস্থিরতায় ১৮ জন নিহত ও ২৪৩ জন আহত হয়েছে। প্রদেশটির স্বায়ত্তশাসন হ্রাস করার পরিকল্পনা নিয়ে গত সপ্তাহে অস্তিরতা শুরু হয় বলে জানিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ।  

সোমবার এক ব্রিফিংয়ে দেশটির ন্যাশনাল গার্ডের প্রেস দপ্তর জানিয়েছে, গত শুক্রবার বিক্ষোভ ছত্রভঙ্গ করে দেওয়ার সময় নিরাপত্তা বাহিনীগুলো ৫১৬ জনকে আটক করেছিল, এখন তাদের অনেককে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। খবর আল-জাজিরার।

শনিবার প্রেসিডেন্ট শাভকাত মিরজায়োইয়েভ কারাকালপাকস্তানের স্বায়ত্তশাসন ও এর বিচ্ছিন্ন হওয়ার অধিকার সংক্রান্ত সংবিধানের অনুচ্ছেদ সংশোধন করার পরিকল্পনা বাদ দেন। উত্তরপশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশটিতে মাসব্যাপী জরুরি অবস্থাও ঘোষণা করেন তিনি।

রিপাবলিক অব কারাকালপাকস্তানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রধান সুলতানবেক জিয়ায়েভ নিউজ ওয়েবসাইট দারিও ডট ইউজেডকে বলেছেন, বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষে আহতদের দিয়ে নুকুসের হাসপাতালগুলো ভরে গেছে।

শাসকদের কঠোর নিয়ন্ত্রণে থাকা সাবেক সোভিয়েত প্রজাতন্ত্র উজবেকিস্তানের সরকার যে কোনো ধরনের ভিন্নমত শক্তহাতে দমন করে।

কারাকালপাকস্তানের অবস্থান আরল সাগরের (হ্রদ) তীরে। এই হ্রদটি কয়েক দশক ধরে পরিবেশগত বিপর্যয়ে ভুগছে। কারাকালপাকস্তানে সংখ্যালঘু নৃগোষ্ঠী কারাকালপাকদের বসবাস। তাদের ভাষা কাজাখ ও উজবেকদের কাছাকাছি।