গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির ফলে পদ্মা সেতুর জন্য সাধারণ মানুষের হাসি আজ কান্নায় পরিণত হয়েছে। আজ চারদিকে শুধু অভাব, অনটন আর কান্না। বন্যাদুর্গত ছাড়াও লাখ লাখ মানুষ কষ্টে আছেন।

বুধবার ধানমন্ডি গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে ঈদ উপলক্ষে দরিদ্র পরিবারকে খাবার সহায়তা প্রদান অনুষ্ঠানের উদ্বোধনীতে তিনি এসব কথা বলেন। দুপুরের পর থেকে ধানমন্ডি গণস্বাস্থ্যের সামনে, কদমতলী, হাতিরপুল, পুরানা পল্টন, উত্তর বাড্ডাসহ বিভিন্ন এলাকায় দুই হাজার পরিবারের মধ্যে ঈদ খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, সরকার এত দিন বলে আসছে, বিদ্যুতে আমাদের সারপ্রাইজ। এখন বলছে, সাশ্রয় করতে হবে। দুর্নীতি করলে যা হয়। আমরা এখন সে অবস্থায় আছি।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয় পদ্মা সেতুতে গিয়ে সেলফি তুলেছেন। এর আগে ঘোষণা হয়েছে, পদ্মা সেতুতে কোনো সেলফি তোলা যাবে না। তার মানে আইন তাঁর জন্য নয়। আইন আপনার জন্য আর আমাদের জন্য আলাদা হতে পারে না। এর অন্যতম কারণ হলো গণতন্ত্র। সাংবাদিকদের কথা বলতে দিতে হবে। যত কালাকানুন আছে, উঠিয়ে নিতে হবে।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রেস উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর আলম মিন্টুর উপস্থাপনায় বক্তব্য দেন ভাসানী অনুসারী পরিষদের আহ্বায়ক শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু, ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহকারী মহাসচিব সাংবাদিক শফিউল আলম দোলন। উপস্থিত ছিলেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের নির্বাহী কর্মকর্তা ডা. মনজুর কাদির আহমেদ, অধ্যাপক শওকত আরমান, মানবসম্পদ বিভাগের কর্মকর্তা শাওনাজ পারভিন প্রমুখ।