বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকার নিজেদের পতন আঁচ করতে পেরেই মরণ কামড় দিতে শুরু করেছে। আগামী জাতীয় নির্বাচনে অবৈধ আওয়ামী লীগ সরকার কতটা হিংস্র হবে, তার মহড়া এখন থেকেই শুরু করেছে।

রোববার এক বিবৃতিতে তিনি এ কথা বলেন।

পুলিশের গুলিতে ভোলা জেলার সদর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য আব্দুর রহিম নিহত ও বিএনপির প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশাররফ হোসেন, ছাত্রদল নেতা আলামিন এবং বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের শতাধিক নেতাকর্মী গুরুতর আহত হওয়ার ঘটনা; ঝালকাঠিসহ দেশের আরও কয়েকটি স্থানে বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচিতে পুলিশের হামলা চালিয়ে অনুষ্ঠান পণ্ডসহ নেতাকর্মীদের আহত করার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে তিনি এ বিবৃতি দেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, এই সরকার মানবাধিকার, বাকস্বাধীনতা তথা জনগণের দুশমন। তারা জনগণের সঙ্গে ভাঁওতাবাজি, অসত্য বক্তব্য এবং বিরোধী দলের জীবন হরণের কর্মসূচিতে লিপ্ত। একদিকে সরকার সভা-সমাবেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও দলীয় ক্যাডারদের লেলিয়ে দিয়ে বিএনপিসহ বিরোধী দলের নেতাকর্মীদেরকে হত্যা ও আহত করছে; অন্যদিকে নিজেদেরকে গণতন্ত্রী বলে দাবি করছে। সরকারের এই দ্বিচারিতা জনগণের কাছে সুস্পষ্ট।

তিনি বলেন, সরকারের পায়ের নিচের মাটি সরে গেছে বলেই তারা এখন হিতাহিত জ্ঞানশূন্য হয়ে পড়েছে। আওয়ামী স্বৈরাশাহির কবল থেকে দেশকে এখনই মুক্ত করতে না পারলে দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব এবং জনগণের জানমাল চরম হুমকির মুখে পড়বে। তাই বর্তমান ভয়াবহ অপশাসনের রোষানল থেকে দেশকে মুক্ত করতে দলমত নির্বিশেষে সবাইকে এগিয়ে এসে গণবিরোধী সরকারের পতন ঘটাতে হবে। তা না হলে রাষ্ট্র ও জনসমাজ থেকে ভয়-শঙ্কা তথা নৈরাজ্য অপসারিত হবে না।

বিএনপি মহাসচিব ভোলায় পুলিশের গুলিতে নিহত স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা আব্দুর রহিমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে শোকাহত পরিবার-পরিজনের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। তিনি আহত নেতাকর্মীদের আশু সুস্থতা কামনা করেন।