জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এবং ক্রীড়া সংগঠক শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের ৭৩তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে তার সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছে আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক উপ-কমিটি।

কমিটির সদস্যরা শুক্রবার সকালে রাজধানীর বনানী কবরস্থানে শেখ কামালের সমাধিতে আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক উপ-কমিটির পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন ও পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। 

শেখ কামালের সমাধিতে আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় উপ-কমিটির শ্রদ্ধা

আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক উপ-কমিটির চেয়ারম্যান কৃষিবিদ মির্জা আব্দুল জলিল ও সদস্যসচিব ফরিদুন্নাহার লাইলির নির্দেশে ও তত্বাবধানে কমিটির পক্ষ থেকে এ শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। পরে বনানী কবরস্থান মসজিদে শেখ কামালের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া মাহফিল, মিলাদ ও মোনাজাত করা হয়। পরে আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ের সামনে গরিব ও দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ করেন কমিটির নেতারা। 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক উপ-কমিটি সদস্য মেজর জেনারেল ফশিউর রহমান (অব.), আব্দুল মতিন, শেখ হাবিবুর রহমান, সরদার মাহমুদ হাসান রুবেল, অ্যাডভোকেট বদরুল হাসান কচি, সরদার ফারুক হোসেন, সুপ্ত ভূষণ বড়ুয়া, গিয়াস উদ্দিন, ব্যারিস্টার ইমতিয়াজ উদ্দিন আসিফ, আব্দুল মালেক মানিক, গোলাম সরোয়ার হেলাল, আবুল খায়ের নাঈম, মো. মনসুর আলী, নির্মল বিশ্বাস, শওকত আকবর, আনোয়ারুল কবির ও আনোয়ার হোসাইন। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক ড. মো. সিরাজুল ইসলাম, শেখ ইমরান, সালাউদ্দিন আজাদ ও শেখ জসিম উদ্দিন। 

প্রসঙ্গত, সৃজনশীল ক্রীড়া, নাট্য ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব এবং আবাহনী ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা শেখ কামাল ১৯৪৯ সালের এই দিনে তৎকালীন গোপালগঞ্জ মহাকুমার (বর্তমানে জেলা) টুঙ্গীপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। মাত্র ২৬ বছর বয়সে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট একদল বিপথগামী সেনাসদস্যের গুলিতে সপরিবারে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে শহীদ হন।

স্বাধীন বাংলাদেশের ক্রীড়া ও সংস্কৃতি পুনর্গঠনে ব্যাপক অবদান রাখেন শেখ কামাল। ১৯৭২ সালে 'আবাহনী ক্রীড়া চক্র' প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে দেশে আধুনিক ফুটবলের উন্মেষ ঘটান তিনি। তিনি নিজে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বাস্কেট দলের খেলোয়ার ছিলেন, এছাড়াও ফুটবল খেলেছেন আজাদ স্পোর্টিং ক্লাবের হয়ে। এমনকি ছায়ানটে নিয়মিত সেতার বাজানো শিখতেন এবং একাধিক নাটকে অভিনয় করেছেন। স্বাধীনতার পর বিভিন্ন সাংস্কৃতিক গোষ্ঠীর পৃষ্ঠপোষকতা করতেন তিনি। মাত্র ২৬ বছরের স্বল্প জীবনে শেখ কামাল রাজনীতি, খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে যে অবদান রেখে গেছেন, তা চিরকাল তারুণ্যের অনুপ্রেরণা এবং স্মরণীয় হয়ে থাকবে।