জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে করা প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনসমূহের মিছিল ও সমাবেশে ছাত্র নেতাদের ওপর চালানো হামলার বিচারের দাবি জানানো হয়েছে। এছাড়া ছাত্র নেতাদের নামে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে জ্বালানি তেলের বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহারের দাবিও জানানো হয়েছে। 

আজ মঙ্গলবার সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মুক্তা বাড়ৈ ও সাধারণ সম্পাদক শোভন রহমান এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি জানিয়েছেন। 

এতে নেতৃবৃন্দ বলেন, গত ৫ আগস্ট রাতে সরকার অযৌক্তিকভাবে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি করে। সেদিন থেকেই প্রগতিশীল সংগঠনগুলো মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ জানিয়েছে নানা মাত্রায়। প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনসমূহ ৭ তারিখ বিকেলে প্রতিবাদ সমাবেশ করে। এই সমাবেশে পুলিশ বর্বরোচিতভাবে হামলা চালায় এবং সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক সুহাইল আহমেদ শুভ, সহ-সভাপতি লাবনী বন্যা, ঢাকা নগরের স্কুল সম্পাদক ফেরদৌস বাঁধনসহ অন্তত ৩০ জন আহত হন। গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গোটা দেশবাসী পুলিশের এই তণ্ডব প্রত্যক্ষ করেছেন। এরপর পুলিশ ফেরদৌস বাঁধনসহ অনিক রয়, ডা. জয়দীপ ভট্টাচার্য ,মশিউর রহমান রিচার্ড, সাদেকুল ইসলাম সোহেলসহ বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের ২১ জনের নামেই মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে।

তারা আরও বলেন, সরকার পুলিশকে আন্দোলন দমনের জন্য লাঠিয়াল বাহিনী হিসেবে ব্যবহার করছে। বিরোধী মতকে দমনের জন্য পুলিশী হামলা ও পরে মামলার আশ্রয় নেয়। আওয়ামী সরকার দেশে একটি ফ্যাসিবাদী শাসন পরিচালনা করছে এবং চূড়ান্ত জনবিচ্ছিন্ন ও জনবিরোধী শক্তিতে পরিণত হয়েছে। ফলে পুলিশ, বিভিন্ন বাহিনী ও আমলাতন্ত্র দিয়ে দেশ চালাচ্ছে। তাই আজকে এদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলা সময়ের দাবি। সকল প্রগতিমনা মানুষ, ছাত্র—জনতার ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মধ্যে দিয়ে এই দুঃশাসন প্রতিরোধ করতে হবে। এই আন্দোলনে সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।