বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে কমিটি গঠন করে সুষ্ঠু তদন্ত ও দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। 

বর্তমান সরকারের আমলে গুম, খুন, মামলা, হামলা ও নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরে মঙ্গলবার রাজধানীর নয়াপল্টনে এক দোয়া মহফিলে অংশ নিয়ে তিনি এ দাবি জানান। খালেদা জিয়ার ৭৮তম জন্মদিন উপলক্ষে এ দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপি।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দীর্ঘ ১৫ বছর ভয়াবহ ফ্যাসিবাদী শাসন, রাস্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে অত্যাচার, নির্যাতন করে ক্ষমতায় বসে আছে। এ কথাগুলো বারবার আমরা বলছি।’

তিনি বলেন, ‘দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার ইতিহাস হলো গণতন্ত্রের ইতিহাস। সারাটা জীবন গণতন্ত্র রক্ষা, পুনরুদ্ধার ও চর্চায় ব্যায় করেছেন তিনি। গণতন্ত্রের জন্যই ভয়াবহ ফ্যাসিস্ট সরকার মিথ্যা মামলায় কারান্তরীণ করে রেখেছেন। আমাদের নেতা তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে নির্বাসিত করে রাখা হয়েছে। ৩৫ লাখ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়েছে। প্রতিদিন গ্রেপ্তার, মিথ্যা মামলা দিচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘খালেদা জিয়া একটি প্রতিষ্ঠান। দেশের মানুষকে মুক্ত করতে লড়াই করে যাচ্ছেন।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘অবৈধ, জোর করে ক্ষমতায় থাকা সরকারের সঙ্গে পাক হানাদার বাহিনীর তুলনা করতে হবে। নির্যাতন-হত্যা করে অনির্বাচিত সরকার দেশের সানুষের আশা আকাঙ্ক্ষা সব ধ্বংস করেছে। রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে ত্রাস সৃষ্টি করে জোর করে ক্ষমতায় বসে আছে।’

সরকার সহজে যাবে না উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘সরকারের পায়ের তলায় মাটি নেই, জনগণ তাদের সঙ্গে নেই। সবাইকে নিয়ে সরকার হটিয়ে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে।’

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তিই প্রথম দাবি এমনটা উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এই সরকারের পদত্যাগ করে সংসদ বিলুপ্ত করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ কমিশন গঠন করতে হবে।’

মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে অংশ নেন, ঢাকা মহানগর বিএনপি দক্ষিণের আহ্বায়ক আবদুস সালাম, ঢাকা মহানগর বিএনপি উত্তর আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান, বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, বিএনপি নেতা আবদুস সালাম, মীর সরফত আলী সপু, আমিনুল হক, রফিকুল আলম মজনু, সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, মামুন হাসান, মোনায়েম মুন্না, মোস্তাফিজুর রহমান, আব্দুল কাদির ভুঁইয়া জুয়েল, সাইফুল ইসলাম ফিরোজ, কাজী রওনাকুল ইসলাম শ্রাবণ, সাইফ মাহমুদ জুয়েলসহ বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।