ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন গণফোরামের নতুন কেন্দ্রীয় কমিটির তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। এতে ড. কামাল হোসেন সভাপতি ও মো. মিজানুর রহমান সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। 

গত ১২ মার্চ অনুষ্ঠিত গণফোরামের বিশেষ কাউন্সিলের মাধ্যমে ড. কামাল হোসেন সভাপতি নির্বাচিত হন। পরে তিনি দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ১০১ সদস্য বিশিষ্ট কেন্দ্রীয় কমিটি করেন। গত ৬ সেপ্টেম্বর কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়।

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক এই কমিটি ঘোষণা করেন। 

কমিটির অন্যান্য পদের মধ্যে সভাপতি পরিষদের সদস্য হয়েছেন খালেকুজ্জামান, মফিজুল ইসলাম, আলতাফ হোসেন সহ ১৭ জন। কোষাধ্যক্ষ হয়েছেন মো. নুরুজ্জামান, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ইয়াসিন, দপ্তর সম্পাদক জহিরুল ইসলাম প্রমুখ।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকেই গণফোরামে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বে দুই ভাগে বিভক্ত। অপর অংশে গত বছরের ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত কাউন্সিলে মোস্তফা মোহসীন মন্টুকে সভাপতি আর সুব্রত চৌধুরীকে সাধারণ সম্পাদক করে ১৫৭ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে ড. কামাল হোসেন বলেন, বর্তমান সংকট নিরসনে 'স্বাধীন ও নিরপেক্ষ নির্বাচনী কাঠামো' দরকার। এভাবে রাষ্ট্রের অনিশ্চয়তা চলতে দেওয়া যায় না। তাই সকল সচেনতন নাগরিক, সংগঠন, ছাত্র, শ্রমিক, চিকিৎসক, পেশাজীবী ও নারী সংগঠনকে জাতীয় সংকট নিরসনের উদ্যোগ নিতে হবে।

আগামী নির্বাচনে ইভিএমে ভোট গ্রহণে নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে কামাল হোসেন বলেন, নির্বাচনী ব্যবস্থাকে আজ ধ্বংসপ্রাপ্ত ও প্রশ্নবিদ্ধ করা হয়েছে। অধিকাংশ রাজনৈতিক দলের আপত্তি সত্ত্বেও কমিশন ইভিএমে ১৫০ আসনে ভোট গ্রহণের প্রস্তুতি নিচ্ছে, তা দেশের জন্য এক ভয়ংকর অশনি সংকেত। জাতি এই দুরবস্থা থেকে পরিত্রাণ চায়।

সংবাদ সম্মেলনে গণফোরামের প্রেসিডিয়ামের সদস্য মফিজুল ইসলাম কামাল, এএসএম আলতাফ হোসেন, মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ, মোশতাক আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।