বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, যারা মানুষ হত্যা করার পরেও বিভ্রান্তি রটাচ্ছেন তারা কেউ জনগণের ক্রোধ থেকে, জনগণের আক্রোশ থেকে রেহাই পাবেন না।

রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ লেবার পার্টির উদ্যোগে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এ কথা বলেন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গুলিতে বিএনপির নেতা-কর্মীর হত্যার ঘটনা তুলে রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘে গিয়ে যুদ্ধ থামানোর কথা, শান্তির কথা বলছেন এবং রোহিঙ্গাদের কথা বলতে গিয়ে তিনি চোখ দিয়ে অজস্র ধারায় পানি ফেলছেন। আর একই সময়ে বাংলাদেশে রক্ত ঝরছে। এই বৈপরীত্য শুধু শেখ হাসিনার ক্ষেত্রেই মানায়। তিনি নিজের দেশের গণতন্ত্রকে কবর দিয়েছেন, কথা বলার স্বাধীনতাকে কবর দিয়েছেন, গণমাধ্যম নিয়ন্ত্রণ করার জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করেছেন আর তিনি জাতিসংঘে গিয়ে মায়া কান্না কাঁদছেন।

তিনি বলেন, ওবায়দুল কাদের বলছেন, ‘বিএনপি লাশের রাজনীতি করে ক্ষমতায় যেতে চায়।’ কিন্তু  বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে গুলি চালিয়ে এ পর্যন্ত চারজন নেতাকে হত্যা করেছে। আসলে আওয়ামী লীগ হচ্ছে ধান্দার পাগল, ধান্দাবাজীর পাগল। ধান্দা হচ্ছে আবোল-তাবোল বলব কিন্তু আমার স্বার্থটা আদায় করে নেবো। বিএনপির এতো নেতাকর্মীকে হত্যা করা হচ্ছে, এতো রক্ত ঝরছে, এতো কর্মী শহীদ হচ্ছে তারপরেও সেটাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখাচ্ছেন ওবায়দুল কাদের, হাছান মাহমুদরা।

 লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরানের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে ন্যাশনাল পিপলস পার্টির ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, বিএনপির মীর সরাফত আলী সপু, হুমায়ুন কবির খান, নিপুণ রায় চৌধুরী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।