গণসমাবেশের নামে ১০ ডিসেম্বর রাজধানীর কোথাও কোনো নৈরাজ্য-বিশৃঙ্খলা করলে কঠোরভাবে দমন করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের নেতারা। তাঁরা বলেছেন, ১০ ডিসেম্বরের ভয় দেখিয়ে কোনো লাভ হবে না। এদিন রাজধানীর অলিগলি সব জায়গায় সতর্ক পাহারা দেবে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী। যেখানেই বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীর নৈরাজ্য হবে, সেখানেই তাদের প্রতিরোধ করা হবে।

রোববার রাজধানীর যাত্রাবাড়ী নুর কমিউনিটি সেন্টারে ঢাকা-৫ নির্বাচনী এলাকার থানা-ওয়ার্ড ও বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মী নিয়ে আয়োজিত কর্মিসভায় নেতারা এসব কথা বলেন। 'বিএনপি-জামায়াতের দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদ' কর্মসূচিতে আগামী ৯ ডিসেম্বর মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সমাবেশ সফল করার লক্ষ্যে এ কর্মিসভার আয়োজন করা হয়।

সভায় মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী বলেন, ১০ ডিসেম্বর বিএনপিকে রাজপথ দখল করতে দেওয়া হবে না। আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী রাজপথে থেকে তাদের যে কোনো নৈরাজ্য মোকাবিলা করবে। এদিন বিএনপি-জামায়াতের কোনো নেতাকর্মীকে হারিকেন দিয়েও খুঁজে পাওয়া যাবে না। তার পরও সর্তক থাকতে হবে। কারণ এই দলগুলো সব সময় চোরাপথের সন্ধানে থাকে।

মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির বলেন, কর্মসূচি দিয়ে বিএনপি নেতারা ঘরে বসে টেলিভিশন দেখেন। আর কর্মীরা হতাশ হয়ে ঘরে ফিরে যায়। এ কারণে ১০ ডিসেম্বর বিএনপি ও তাদের দোসর জামায়াতকে রাজপথে পাওয়া যাবে না। কারণ বিএনপিকে আওয়ামী লীগের কাছ থেকে রাজনীতি ও আন্দোলন শিখতে হবে।

মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মিজবাহুর রহমান ভূঁইয়া রতনের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন মহানগর দক্ষিণের নেতা গোলাম সারোয়ার কবির, এফএম শরিফুল ইসলাম শরিফ, চৌধুরী সাইফুন্নবী সাগর, মশিউর রহমান মোল্লা সজল, হারুনুর রশীদ মুন্না, আবুল কালাম অনু প্রমুখ।